আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ঃ একজন বিজ্ঞানী, অর্থনীতিবিদ ও সমাজসেবকের কথা

খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার রাড়ুলি গ্রামে ১৮৬১ সালের ২রা আগস্ট তার জন্ম। বাবা হরিশ্চন্দ্র রায় ছিলেন স্থানীয় জমিদার। মা ভুবনমোহিনী দেবী। সকলে তাকে ডাকতো ‘ফুলু’ নামে। প্রফুল্লচন্দ্রের বাবা যেমন ছিলেন প্রাচ্য শিক্ষায় শিক্ষিত ঠিক তেমনই পাশ্চাত্যের সমৃদ্ধ কৃষ্টির অনুরাগী। ফলে ছোটবেলায় ঘরেই যখন প্রফুল্লচন্দ্রের জ্ঞানচর্চার হাতেখড়ি হয় জমিদার ও তথাকথিত উচ্চ হিন্দু বংশের সন্তান হওয়া সত্বেও কখনো কোনরূপ গোঁড়ামি তাকে স্পর্শ করতে পারেনি।

বাবার কাছ থেকে শেখা স্বাভাবিক শিক্ষাগত ঔদার্যই তাকে পরবর্তীতে প্রবাদপ্রতিম শিক্ষক ও প্রণিধানযোগ্য ব্যক্তিত্বে পরিণত করেছিল। পাশাপাশি নিজের গ্রামেই বাবার একটি নিজস্ব লাইব্রেরি থাকায় বই পড়ার প্রতি আগ্রহ তার জ্ঞানপিপাসা বাড়িয়ে দিয়েছিল ভীষণরূপে।

স্থানীয় পড়াশুনোর পাট শেষ হবার পর তাকে ভর্তি করা হলো কলকাতার হেয়ার স্কুলে। তার স্বাস্থ্য খুব একটা ভালো না থাকায় এর দুই বছর পরেই রক্ত আমাশয়ে আক্রান্ত হলেন। ফলে বিরতি পড়লো পড়াশোনায়। বিরতির পর তিনি ভর্তি হলেন কেশবচন্দ্র সেন কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত এলবার্ট স্কুলে। এ স্কুল থেকেই ১৮৭৮ সালে তিনি প্রবেশিকা পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। এরপর বিদ্যাসাগর কলেজ (তৎকালীন মেট্রোপলিটন কলেজ) থেকে দ্বিতীয় বিভাগে এফ. এ. পাশ করে প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন।

যুবক বয়সে প্রফুল্লচন্দ্র

প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে তিনি এরপর গিলক্রিস্ট স্কলারশিপ নিয়ে বিলেতে পাড়ি জমান। এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালীন সময়ে পড়াশুনায় যথেষ্ট পাণ্ডিত্যের পরিচয় দেন। সেখানে থাকাকালীন সময়েই তিনি সিপাহী বিদ্রোহের পূর্বে ভারতীয় উপমহাদেশের অবস্থা শীর্ষক একটি রাজনৈতিক গবেষণামূলক বই লেখেন।

এ থেকে দেখা যায় আচার্য প্রফুল্লচন্দ্রের রাজনৈতিক জ্ঞানও যথেষ্ট প্রশংসার দাবি রাখে। ছয় বছর পর তিনি এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টর অব সায়েন্স উপাধি অর্জন করেন। এর আগে মাত্র একজন বাঙালি এই উপাধি অর্জন করতে পেরেছিলেন। তিনি ডাঃ অঘোর নাথ চট্টোপাধ্যায়। বিলেতে থাকাকালীন সময়ে তার জ্ঞানসাধনা সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন-

আমি যখন এডিনবরাতে পড়তাম India & British Rule নামে একটি বই লিখেছিলাম। ফলে লর্ড বায়রনের মতো Awoke one fine morning and found myself famous এইরকম ভাবে রাজনীতির চর্চা করেছি, নানা প্রকার বই লেখার চেষ্টা করেছি। পাশাপাশি রসায়ন শাস্ত্র অধ্যয়ন ও গবেষণার কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি

দেশে ফিরেই তিনি শুরু করেন তার কর্মযজ্ঞ। প্রথমেই প্রেসিডেন্সি কলেজে অধ্যাপকের পদে যোগ দিলেন। এখানেই তিনি গবেষণা চালাতে থাকেন। প্রথম গবেষণার ফল বের হয় জার্নাল অব এশিয়াটিক সোসাইটি অব বেঙ্গলে। গবেষণার বিষয়বস্তু ছিল মারকিউরাস নাইট্রাইট।

নাইট্রাইট যৌগসমূহ খুব বেশি একটা স্থায়ী হয় না। এজন্যে তিনি সে সময় প্রেসিডেন্সি কলেজে বসে সামান্য কিছু যন্ত্রপাতির মাধ্যমে সহজেই অপেক্ষাকৃত স্থায়ী নাইট্রাইট তৈরির উপায় উদ্ভাবন করেছিলেন। এটি ইউরোপ ও পাশ্চাত্যের অন্যান্য দেশের বিজ্ঞানীদের কাছে বিস্ময়ের কারণ ছিল। এ কাজের স্মরণে সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে প্রশংসা করেছিলেন এই বলে-

বিসম ধাতুর মিলন ঘটায়ে বাঙালি দিয়েছে বিয়া,

বাঙালির নব্য রসায়ন শুধু গরমিলে মিলাইয়া।

১৮৯৭ সাল থেকে ১৯০২ সাল পর্যন্ত ধাতব নাইট্রাইটের উপর তার গবেষণা বিভিন্ন কেমিক্যাল সোসাইটির জার্নালে প্রকাশিত হয়। এছাড়া পারদ-সংক্রান্ত ১১টি মিশ্র ধাতব যৌগ আবিষ্কার করে তিনি রসায়নজগতে আলোড়ন সৃষ্টি করেন।

সম্পূর্ণ নতুন উপায়ে গবাদি পশুর হাড় পুড়িয়ে তাতে সালফিউরিক এসিড যোগ করে তিনি সুপার ফসফেট অব লাইম তৈরি করেন। ভৌত রসায়নের বিভিন্ন বিষয়ে তার পাণ্ডিত্যপূর্ণ গবেষণার ফলাফল আমরা দেখতে পাই তার গবেষণাপত্রের মান এবং তার সংখ্যায়। প্রেসিডেন্সি কলেজে থাকাকালীন সময়ে দেশি বিদেশি নামকরা জার্নালে তার মোট গবেষণাপত্র ১০১টি।

একজন গবেষক হিসেবে প্রফুল্লচন্দ্র যেরকম অসম্ভব মেধার পরিচয় দিয়েছেন ঠিক তেমনই শিক্ষক হিসেবেও স্থায়ী আসন গ্রহণ করেছেন ছাত্রদের হৃদয়ে। নিজের ছাত্রদের তিনি পুত্রবৎ স্নেহ করতেন এবং খুব আনন্দঘন উপায়ে জটিল ও দুর্বোধ্য বিষয়গুলিকে ছাত্রদের সামনে উপস্থাপন করতেন। শিক্ষক হিসেবে নিজের ভূমিকা সম্বন্ধে তিনি বলেছেন-

গবেষণারত আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়


প্রেসিডেন্সি কলেজে আমার ২৭ বছর অধ্যাপনা জীবনে আমি সচেতনভাবে প্রধানতঃ নিচের ক্লাসেই পড়াতাম। কুমোর যেমন কাদার ডেলাকে তার পচ্ছন্দমতো আকার দিতে পারে
, হাই স্কুল থেকে সদ্য কলেজে আসা ছাত্র-ছাত্রীদের তেমনি সুন্দরভাবে গড়ে তোলা যায়। আমি কখনও কোনো নির্বাচিত পাঠ্যবই অনুসরণ করে পাঠদান দিতাম না।

কেবলমাত্র তার নিজের যশ খ্যাতি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকেননি। পাশাপাশি তৈরি করেছেন এক দল দক্ষ ছাত্র ও সহকারী গবেষক, যারা তার কাজে যুগপৎ সাহায্য করেছেন এবং পরবর্তীতেও নিজেদেরকে স্বাধীন ও প্রকৃষ্ট গবেষক রূপে গড়ে তুলেছেন। নীলরতন ধর, রসিকলাল দত্ত, পঞ্চানন নিয়োগী, জ্ঞানচন্দ্র ঘোষ প্রমুখ নামজাদা বাঙালি বিজ্ঞানী আচার্য প্রফুল্লচন্দ্রের দ্বারাই উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত।

একজন শিক্ষক হিসেবে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের তথাকথিত ডিগ্রির দিকে না তাকিয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন একজন ছাত্রের গবেষণার প্রবৃত্তি ও উৎসাহের উপর। তার একজন ছাত্রকে সাথে নিয়ে তিনি এমাইন নাইট্রেট আবিষ্কার করেছিলেন। অথচ শ্রীযুক্ত রক্ষিত নামের এই সহকারীটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হন। তার গবেষণার সুপ্ত প্রতিভা প্রফুল্লচন্দ্র ঠিকই অনুভব করতে পেরেছিলেন। তাকে পরবর্তী গবেষণার সুযোগ দিয়ে বিজ্ঞানচর্চায় ভূমিকা রাখেন আর এইখানেই ছিল একজন শিক্ষক হিসেবে প্রফুল্লচন্দ্রের সার্থকতা।

১৯১৬ সালে প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে তিনি অবসর নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন, যতদিন তিনি অধ্যাপক পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন ততদিন তিনি এক কপর্দক বেতন নেননি। এ অর্থ সঞ্চিত থাকতো কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি সব সময় তার ছাত্রদের নিজের অলংকার হিসেবে বিবেচনা করতেন। জাগতিক কোন কিছুর প্রতি তার কোন লোভ ছিল না কখনোই।

চিত্র: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যান্য অধ্যাপক ও সহকারী অধ্যাপকদের সাথে আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র। মাঝে উপবিষ্ট আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র, সর্ব ডানে বসা সত্যেন্দ্র নাথ বসু, সর্ব বামে দাঁড়িয়ে আছেন মেঘনাদ সাহা।

শুধুমাত্র গবেষণার কাজে তিনি নিজেকে চার দেয়ালের মধ্যে আটকে রাখেননি। জ্ঞানের ক্ষেত্র থেকে তার অর্জিত সকল অভিজ্ঞতাকে তিনি শক্তিরূপে নিয়োগ করেছিলেন দেশের কাজে। যেখানেই দারিদ্র্য, বন্যা, মহামারি, দুর্যোগ সেখানেই তিনি তার সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে আত্মনিয়োগ করেছেন। সমগ্র বিশ্বই ছিল তার সংসার। তাই তিনি বৈরাগ্যের মধ্যেই নিজের কর্মযজ্ঞের দ্বারা নিজের স্থান করেনিয়েছিলেন।

তখন ছিল ইংরেজ শাসনামল। শাসকের অধীনস্ত হয়ে কখনো তিনি কোনো অন্যায় সহ্য করেননি। এর স্বরূপ আমরা দেখতে পাই ব্রিটিশ সরকার কর্তৃক পাশকৃত বঞ্চনাকর রাউলাট আইনের বিরুদ্ধে তার প্রতিবাদী কণ্ঠস্বরে। ১৯১৯ সালের ১৮ জানুয়ারি কলকাতা টাউন হলে চিত্তরঞ্জন দাশের সভাপতিত্বে রাউলাট আইনের বিরুদ্ধে যে প্রতিবাদ সভা হয় সেখানে প্রফুল্লচন্দ্র ও যোগদান করেন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন-

আমি বৈজ্ঞানিক, গবেষণাগারেই আমার কাজ, কিন্ত এমন সময় আসে যখন বৈজ্ঞানিককেও দেশের আহবানে সাড়া দিতে হয়। আমি অনিষ্টকর এই আইনের তীব্র প্রতিবাদ করিতেছি।

এছাড়া আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র মহাত্মা গান্ধীর একান্ত অনুরাগী ছিলেন। দেশজ পণ্য ব্যবহারের জন্য যে আন্দোলন তখন বৈপ্লবিক আকার ধারণ করে সেই আন্দোলনে প্রফুল্লচন্দ্র ও একাত্মতা ঘোষণা করেন। ইংরেজ শাসক গোষ্ঠীর খাতায় তাকে ‘বিজ্ঞানীর বেশে বিপ্লবী’ নামে ডাকা হতো।

পাশ্চাত্যের অনেক আগে, প্রাচীন ভারতে বৈদিক যুগ থেকেই বিভিন্ন মুনি ঋষির হাত ধরে বিজ্ঞানচর্চা সমৃদ্ধি লাভ করেছিল। প্রফুল্লচন্দ্রকে এ বিষয়টি আকৃষ্ট করে প্রবলভাবে। তাই তিনি সেই বৈদিক যুগ থেকে চলে আসা হিন্দু রসায়নের ক্রমবিবর্তনকে লিপিবদ্ধ করবার উদ্যোগ নেন।

১৯০২ এবং ১৯১৯ সালে দুই খণ্ডে প্রকাশিত হয় তার রচিত ‘আ হিস্ট্রি অব হিন্দু কেমিস্ট্রি’ বা ‘হিন্দু রসায়নের ইতিহাস’। এটি তার অসামান্য কীর্তি। সে সময় তিনি বিভিন্ন পুঁথিপত্রের উপর বিস্তর গবেষণা করে এ গ্রন্থ টি রচনা করেন। পুরো ভারতবর্ষ, নেপাল ও লন্ডনের অনেক জায়গা ঘুরে তিনি এ গ্রন্থ লেখবার দুষ্প্রাপ্য ও প্রয়োজনীয় পাণ্ডুলিপি ও পুঁথি সংগ্রহ করেন।

দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের মৃত্যুর পর শোকসভায় আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র ও মহাত্মা গান্ধী

বইটির উপর একটি আলোচনা মূলক প্রবন্ধে এক গবেষকগণ মন্তব্য করেন-

In this book he showed from an unbiased scientific standpoint, how much the knowledge of acids, alkali, metals, and alloys proceeded in different epochs of Indian history. He showed that, the science of metallurgy and of medicine had advanced significantly in ancient India; when Europe was practising alchemy, India was not far behind.

বইটির প্রশংসা করে তৎকালীন প্রখ্যাত রসায়নবিদ মারসেলিন বার্থেলো স্বয়ং চিঠি লিখেন প্রফুল্লচন্দ্রকে। সে সময়ে বিশেষত পাশ্চাত্যের বিজ্ঞানীদের কাছে ভারতীয় উপমহাদেশের বিজ্ঞানীদের বিজ্ঞানচর্চায় সমৃদ্ধির কথা জানানোর জন্যে বার্থেলো প্রফুল্লচন্দ্রকে ধন্যবাদ জানান।

চিত্র: আ হিস্ট্রি অফ হিন্দু কেমিস্ট্রির সম্মুখপট

এতক্ষণ যে প্রফুল্লচন্দ্রের কথা বললাম তিনি একজন গবেষক, বিজ্ঞানের ইতিহাসবেত্তা, ছাত্রদের কাছে অতি প্রিয় শিক্ষক এবং দেশপ্রেমিক। কিন্তু তিনি একজন গুণী শিল্পোদ্যোক্তাও ছিলেন। অসাধারণ বাণিজ্যিক দূরদর্শিতার অধিকারীও ছিলেন।

মাত্র আটশ টাকা মূলধনে আপার সার্কুলার রোডের একটা ছোট ঘরে প্রফুল্লচন্দ্র গড়ে তুললেন তার স্বপ্নের বেঙ্গল কেমিক্যালস এন্ড ফার্মাসিটিউক্যালস ওয়ার্কস। প্রচণ্ড ধৈর্য আর নিষ্ঠার সাথে অক্লান্ত পরিশ্রমে যে প্রতিষ্ঠান তিনি গড়ে তুললেন, যার মূলধন ছিল মাত্র ৮০০ টাকা, তার পরিমাণ আজকে এসে দাঁড়িয়েছে প্রায় আট কোটি টাকার কাছাকাছি।

উদ্যোক্তা হিসেবে ছিলেন অসম্ভব ন্যায়নিষ্ঠ এবং সততাই ছিল তার সাফল্যের মূলমন্ত্র। আজকে অনেক ক্ষেত্রেই উদ্যোক্তাদের (বিশেষত তরুণ উদ্যোক্তাদের) পুঁজি-মূলধন নিয়ে আক্ষেপ করতে শোনা যায়। এই হতাশায় প্রফুল্লচন্দ্রের আদর্শ আমাদের সামনে উল্লেখযোগ্য দৃষ্টান্ত হিসেবে উপস্থাপন করা যেতে পারে।

প্রফুল্লচন্দ্র অধ্যাপনা থেকে ৭৫ বছর বয়সে অবসর গ্রহণ করেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত নিজের অধ্যয়ন ও জ্ঞান চর্চা করে গেছেন। জ্ঞান চর্চাকেই তিনি তার জীবনের সাধনা ও একমাত্র ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন। এজন্যে তিনি কখনো বিয়ে করেননি। এক হতে বহুত্বে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া, উপনিষদের এই বাণীকে তিনি তার জীবনের পাথেয় করেনিয়েছিলেন। তাই সর্বদা মানুষের কল্যাণে সমাজের সকল স্তরের জনমানুষের কাছে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন।

মানুষ হিসেবে ছিলেন অসাম্প্রদায়িক। অধ্যাপক থাকার সময় ডক্টর কুদরত-ই-খোদা এম.এস.সিতে প্রথম স্থান অধিকার করলে অনেকে তাকে প্রথম স্থান না দেবার জন্যে প্রফুল্লচন্দ্রকে সুপারিশ করলে তিনি এর ঘোর বিরোধিতা করেন এবং নিজের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। তিনি জাতিভেদ প্রথায়ও বিশ্বাসী ছিলেন না। প্রাচীন ভারতে হিন্দু রসায়ন চর্চা তথা বিজ্ঞান সাধনার এত সমৃদ্ধি থাকা সত্ত্বেও জ্ঞান বিজ্ঞানে ভারতীয় উপমহাদেশের পিছিয়ে পড়ার পেছনে তিনি জাতিভেদ প্রথাকেই দায়ী করেছিলেন।

তার বইতে দেখিয়েছিলেন যাদের কাছে বিজ্ঞানের হাতে-কলমে ফল পাওয়ার সম্ভাবনা ছিল তাদেরকে যখন জ্ঞান চর্চা থেকে বিরত রাখা হয় তখন থেকেই বিজ্ঞানের বিস্তারের দরজা সংকীর্ণ হতে থাকে।

জীবন যাপনে তিনি ছিলেন একদম সাদামাটা। এক পয়সার বেশি সকালের নাশতার পেছনে ব্যয় করলে রেগে যেতেন। জামাকাপড়ও খুবই সাধারণ মানের পরতেন। অনেক মানুষ এত বড় অধ্যাপকের পোশাক দেখে অবাক হয়ে যেতো।

তার অর্থের একটা বড় অংশ চলে যেত বিভিন্ন কলেজ, মানবকল্যান সংস্থা, দরিদ্র তহবিল, বিজ্ঞান সংগঠন প্রভৃতির প্রতি। সে সময় বাংলায় স্থাপিত এরকম কোনো শিক্ষা ও জনকল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে তার অনুদান ছিল না। ১৯০৩ সালে তিনি দক্ষিণবঙ্গে প্রতিষ্ঠা করেন আর.কে.বি.কে হরিশ চন্দ্র ইনস্টিটিউট (বর্তমানে কলেজিয়েট স্কুল)। নিজের গ্রামে তার দ্বারাই প্রতিষ্ঠিত হয় যশোর-খুলনার প্রথম বালিকা বিদ্যালয় ‘ভুবন মোহিনী বালিকা বিদ্যালয়’। বাগেরহাট পিসি কলেজও তারই কীর্তি।

সাতক্ষীরা চম্পাপুল স্কুলও পি সি রায়ের অর্থানুকূল্যে প্রতিষ্ঠিত। খুলনার দৌলতপুর বিএল কলেজ, কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, কারমাইকেল মেডিকেল কলেজ, বরিশালে অশ্বিণী কুমার ইনস্টিটিউশন, যাদবপুর হাসপাতাল, চিত্তরঞ্জন ক্যান্সার হাসপাতাল সহ প্রায় অর্ধশতাধিক প্রতিষ্ঠানে তিনি আর্থিক অনুদান দিয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও পি সি রায় ১৯২৬ থেকে ১৯৩৬ সাল পর্যন্ত ১ লক্ষ ৩৬ হাজার টাকা দান করে ছিলেন। একাধারে একজন শিল্পাদ্যোক্তা, সমাজ সংস্কারক, দার্শনিক, কবি, শিক্ষানুরাগী, বিপ্লবী দেশপ্রেমিক, অধ্যাপক প্রফুল্লচন্দ্র নিজের পরিচয় দিয়েছেন এভাবে-

আমি বৈজ্ঞানিকের দলে বৈজ্ঞানিক, ব্যবসায়ী সমাজে ব্যবসায়ী, গ্রাম সেবকদের সাথে গ্রাম সেবক আর অর্থনীতিবিদদের মহলে অর্থনীতিজ্ঞ।

১৯৪৪ সালের ১৬ ই জুন ৮৩ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্রের পুরো জীবনটি এক অনির্বচনীয় প্রেরণার উৎস। তার প্রতি আমাদের যথার্থ শ্রদ্ধা অর্থপূর্ণ হবে তখনই যখন আমরা তার জীবন দর্শনকে হৃদয়ে ধারণ করে এগিয়ে যাব। বাংলা ও বাঙালির ইতিহাসে তিনি একজন সত্যিকার জ্ঞানতপস্বীর দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবেন।

তথ্যসূত্র

১. আত্মচরিত- আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায়

২. আচার্য্য প্রফুল্লচন্দ্র – শ্রী ফণীন্দ্রনাথ বসু

৩. আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্রের জীবনবেদ- নন্দলাল মাইতি

৪. পাইকগাছা ও কয়রা থানার স্মরনীয় ও বরণীয় যারা- সম্পাদনা-শেখ শাহাদাত হোসেন বাচ্চু

৫. P. C. Ray, “Life and experiences of a Bengali chemist,” 2 vols. Calcutta: Chuckervertty, Chatterjee & Co. 1932 and 1935

ভুলে যাওয়া বাঙালি জ্যোতির্বিজ্ঞানী রাধাগোবিন্দ চন্দ্র

রাধাগোবিন্দ চন্দ্র ছিলেন একজন জ্যোতির্বিজ্ঞানী, যার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি ছিল না। ছিল না কোনো বড় সার্টিফিকেট। কিন্তু কেবলমাত্র নিজের ইচ্ছায় ভর করে তিনি নাম লিখিয়েছিলেন ইতিহাসের পাতায়। সাধনা নামক জিনিসটি থাকলে শত প্রতিবন্ধকতার মাঝেও যে মানুষ অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারে তার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত তিনি।

১৮৭৮ সালের ১৬ ই জুলাই তিনি জন্মগ্রহণ করেন যশোর জেলার বকচর গ্রামে। বাবা গোরাচাঁদ ছিলেন স্থানীয় একজন ডাক্তারের সহকারী। মা পদ্মামুখ ছিলেন গৃহিণী। ছোটবেলায় সমবয়সী অন্যান্যদের মতোই তিনি ছিলেন খানিকটা দুরন্ত। বিদ্যালয়ের পড়াশোনায় কিছুটা অমনোযোগী। কিন্তু যে জিনিসটিতে রাধাগোবিন্দ অন্য সকলের চেয়ে আলাদা ছিলেন সেটি হলো আকাশের প্রতি আগ্রহ। মামার বাড়ির লাইব্রেরিটা ছিল তার সবচে’ প্রিয় জায়গা। কত ধরনের বই সেখানে! আর মামার বাড়ির ছাদে দাড়িয়ে আকাশ দেখতে কী যে আনন্দ!

মামার বাড়ির একজনের কাছে তার সব প্রশ্ন আর কৌতূহল। তিনি তার দিদা, সারদা সুন্দরী ধর, এর কোলে শুয়ে রাতের আকাশ দেখতেন। পর্যবেক্ষণ জ্যোতির্বিজ্ঞানের প্রতি তার আগ্রহের পটভূমি রচিত হয় সেই থেকেই।

দশ বছর বয়সে তিনি ভর্তি হয়েছিলেন যশোরের জিলা স্কুলে। ষষ্ঠ শ্রেণীতে তার পাঠ্যপুস্তকের মধ্যে বিজ্ঞানী অক্ষয় কুমার দত্তের লেখা চারুপাঠ বইতে ‘ব্রহ্মাণ্ড কী প্রকাণ্ড!’ প্রবন্ধটি তাকে বেশ আলোড়িত করেছিল। এ প্রবন্ধ তার জ্যোতির্বিজ্ঞান পড়ার প্রতি আগ্রহ আরো তীব্র করে তোলে। এই ব্রহ্মাণ্ডের কোথায় আদি আর কোথায়ই বা অন্ত- এ প্রশ্ন তাকে স্বপ্নবিভোর করে তোলে। তার নিজের রচিত পাণ্ডুলিপিতে তিনি লিখেছেন-

অক্ষয়কুমার দত্তের চারুপাঠ তৃতীয় ভাগ পড়িয়া, নক্ষত্রবিদ হইবার জন্যে আর কাহারো বাসনা ফলবর্তী হইয়াছিল কিনা জানি না, আমার হইয়াছিল। সেই উদ্দাম ও উচ্ছৃঙ্খল বাসনার গতিরোধ করিতে আমি চেষ্টা করি নাই।

কিন্তু এই স্বপ্নবিভোরতা তাকে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা থেকে পিছিয়ে দেয়। জিলা স্কুল থেকে এন্ট্রান্স দিলেন, পাশ করতে পারলেন না। তিন তিন বার চেষ্টার পরেও ব্যর্থ হলেন। এরপর ১৮৯৯ সালে ২১ বছর বয়সে তিনি বিয়ে করেন ৯ বছর বয়স্কা মুর্শিদাবাদের মেয়ে মোহিনীকে। বিয়ের পর তিনি আরেকবার এন্ট্রান্স দেওয়ার চেষ্টা করেন। এবার তিনি পড়াশোনার পাট শেষ করে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। কারণ সাংসারিক দায়িত্ব তখন তার হাতে। মাত্র ১৫ টাকা বেতনে তিনি যশোর কালেক্টরেট অফিসে খাজাঞ্চির চাকরি নেন।

কিন্তু তার আকাশ দেখা থেমে থাকে না। সে সময়ে যশোরের আইনজীবী কালীনাথ মুখোপাধ্যায় তাকে জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চায় সাহায্য করেন। কালীনাথ মুখোপাধ্যায় নিজে আইনজীবী হলেও তার মূল আগ্রহ ছিল আকাশচর্চায়। সংস্কৃতে ‘খগোলচিত্রম’ বাংলায় ‘তারা’ এবং ইংরেজিতে ‘পপুলার হিন্দু এস্ট্রোনমি’ নামে তিনি কিছু বই লিখেন যা সে সময়ের জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান।

উল্লেখ্য, সংস্কৃতে খগোল অর্থ জ্যোতিষ্কমণ্ডল। কালীনাথবাবু তার নিজের নক্ষত্র মানচিত্রটি (স্টার ম্যাপ) দিলেন রাধাগোবিন্দকে। এতে তারা দেখতে সুবিধা হয় তার। চাকরির কাজ শেষে সন্ধ্যে হলেই তিনি উঠে যেতেন ছাদে। স্টারম্যাপ কাজে লাগিয়ে চেনার চেষ্টা করতেন নক্ষত্রগুলোকে। কখনো কখনো সফল হতেন আবার কখনো হতেন না। তবে কোনো যন্ত্রপাতি বা কোনো শিক্ষক ছাড়াই খালি চোখে আকাশ দেখে তারা চেনা শুরু করেছিলেন তিনি।

এর বেশ কিছুদিন পরের কথা। তিনি নিজে গিয়ে ‘খগোলচিত্রম’ আর ‘তারা’ বই দুটি কিনে নিয়ে আসেন। সাথে নিয়ে আসেন অল্প দামের একটি বাইনোকুলার। সামান্য এই বাইনোকুলার দিয়েই তিনি দেখেন হ্যালির ধূমকেতু। ধূমকেতু বস্তুতই তার জীবনে ধূমকেতুর ন্যায় পরিবর্তন এনে দিয়েছিল। ধূমকেতুর বর্ণনা তিনি লিপিবদ্ধ করে রাখেন যা বিস্তারিত আকারে পরবর্তীতে হিন্দু পত্রিকায় ছাপা হয়।

সে সময় ধীরে ধীরে রাধাগোবিন্দ কলকাতার বিভিন্ন পত্রিকায় ছোট ছোট প্রবন্ধ পাঠাতে থাকেন। তার সেসব লেখা শান্তিনিকেতনের শিক্ষক জগদানন্দ রায়ের চোখে পড়লে তিনি রাধাগোবিন্দের কাছে প্রশংসাসূচক চিঠি লিখেন এবং তাকে একটি ভালো মানের দূরবীক্ষণ যন্ত্র কিনতে পরামর্শ দিলেন।

কাজের এটুকু স্বীকৃতি পেয়ে উৎসাহিত হলেন রাধাগোবিন্দ। নিজের সামান্য কিছু জমি বিক্রি করে ২৭৫ টাকা দিয়ে একটি তিন ইঞ্চি ব্যাসের দূরবীক্ষণ যন্ত্র কিনলেন। ১৯১২ সালের সেপ্টেম্বরে দূরবীক্ষণ যন্ত্রটি ইংল্যান্ড থেকে মেসার্স কক্স শিপিং এজেন্সি লিমিটেডের মাধ্যমে রাগাগোবিন্দের কাছে এসে পৌঁছায়। স্বল্প আয়ের রাধাগোবিন্দকে খুব হিসেব করে চলতে হতো।

জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চায় তার যা ব্যয় হতো তা লিপিবদ্ধ করে রাখতেন। সম্পূর্ণ যন্ত্রটির দাম পড়েছিল ১৬০ টাকা ১০ আনা ৬ পাই। প্রথমে মূল দূরবীনটির টিউব ছিল কার্ডবোর্ডের তৈরি যা পরে তিনি ইংল্যান্ডের মেসার্স ব্রহার্স্ট এণ্ড ক্লার্কসন থেকে পিতলের টিউব আনিয়ে নেন অতিরিক্ত ৯৬ টাকা ১০ আনা খরচ করে। পাশাপাশি এর উন্নতিও সাধন করে নেন। আত্মজীবনীতে তিনি লিখেছেন-

সন ১৩১৯ সালের আশ্বিন মাসে দুরবিন আসার পরে আমার নক্ষত্রবিদ্যা অনুশীলনের ৪র্থ পর্ব আরম্ভ। এই সময়ে আমি কালীনাথ মুখোপাধ্যায়ের খগোলচিত্রমতারা পুস্তকের সাহায্যে এটা-ওটা করিয়া যুগল নক্ষত্র, নক্ষত্র-পুঞ্চ নীহারিকা, শনি, মঙ্গল প্রভৃতি গ্রহ দেখিতাম। পরে জগদানন্দ রায়ের উপদেশ মত স্টার অ্যাটলাস এবং ওয়েবস সিলেসিয়াল অবজেক্ট ক্রয় করিয়া যথারীতি গগন পর্যবেক্ষণ করিতে আরম্ভ করি। কিন্তু ইহাতেও আমার কার্য্য বেশীদূর অগ্রসর হয় নাই। তবে আমি এই সময়ে গগনের সমস্তরাশি নক্ষত্র ও যাবতীয় তারা চিনিয়া লইয়াছিলাম এবং কোনো নির্দিষ্ট তারায় দুরবিন স্থাপনা করিতে পারিতাম।

এরপর থেকে নতুন উদ্যমে তিনি পর্যবেক্ষণ করে চললেন ভ্যারিয়েবল স্টারদের। মহাকাশে কিছু তারা রয়েছে যাদের ঔজ্জ্বল্য নিয়ত পরিবর্তনশীল। এদেরকে বলে ভেরিয়েবল স্টার। ‘আমেরিকান এসোসিয়েশন অব ভ্যারিয়েবল স্টারস অবজারভারস’ বা এভসোর দেয়া তথ্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত মোটামুটি দেড় লক্ষের মতো ভ্যারিয়েবল স্টারের সন্ধান মিলেছে। রাধাগোবিন্দ ভ্যারিয়েবল স্টারদের বাংলা নাম দিয়েছিলেন ‘বহুরূপ তারা’।

আকাশ দেখতে দেখতে এলো ১৯১৮ সালের ৭ই জুন। অন্যদিনের মতোই রাধাগোবিন্দ বহুরূপ তারাদের পর্যবেক্ষণ করছিলেন। কিন্তু সেদিনকার আকাশটা অন্যদিনের চেয়ে বেশি উজ্জ্বল দেখাচ্ছিল। কিছুতেই বুঝে উঠতে পারছিলেন না এই উজ্জ্বলতার উৎস ঠিক কোথায়।

উৎসটা ঠিক কী এটা নিয়ে তার মনে যখন গজিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন, সে সময় তিনি আকাশে ঝলমলে একটি তারা দেখতে পান এবং সেটিকে দেখামাত্র পর্যবেক্ষণ করতে শুরু করেন। ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার পর তিনি বুঝতে পারেন আসলে ঐ উজ্জ্বল তারাটি একটি নোভা যার নাম পরে দেয়া হয় ‘নোভা একুইলা ১৯১৮’ বা ‘নোভা একুইলা ৩’।

প্রবাসী পত্রিকাতে তিনি এটি নিয়ে লেখালেখিও করেন। আবার জগনানন্দ রায়ের উপদেশে রাধাগোবিন্দ তার লিপিবদ্ধ বিস্তারিত বিবরণ পাঠিয়ে দেন হার্ভার্ড মহাকাশ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের চার্লস পিকারিং এর কাছে।

তখনকার দিনে যাতায়াতের সুব্যবস্থা না থাকার ফলে সে চিঠি পৌঁছাতে অনেক সময় লেগে যায়। কিন্তু হার্ভার্ড পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষ তাকে অভিনন্দন জানায় এবং বেশ কিছু তারা মানচিত্র ও জ্যোতির্বিজ্ঞানের উপর বই পাঠিয়ে তাকে সম্মানিত করেন। চিঠিতে হার্ভার্ড মহাকাশ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের পরিচালক হারলো শ্যাপলি অভিনন্দন জানিয়ে বলেছিলেন

বিদেশ থেকে পরিবর্তনশীল নক্ষত্র সম্পর্কে আমরা যেসব পর্যবেক্ষণমূলক তথ্য পেয়ে থাকি তার মধ্যে আপনার দান অন্যতম। আপনাকে আমরা আন্তরিক শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

এরপর আমেরিকান এসোসিয়েশন অব ভ্যারিয়েবল স্টার অবজার্ভার এর সদস্য করে নেয়া হয় তাকে। ১৯২৬ সালে চার্লস এলমার এভসো থেকে তাকে একটি ৬ ইঞ্চি টেলিস্কোপ উপহার দেন। এলমারের দেওয়া সে টেলিস্কোপটি তার মৃত্যুর পরে দক্ষিণ ভারতীয় জ্যোতির্বিদ ভেইনু বাপ্পুর কাছে কিছুদিন থাকার পর এখন পরম যত্নে রাখা আছে দক্ষিণ ভারতের কাভালুর মানমন্দিরে।

এরপরে ফরাসি সরকার ভ্যারিয়েবল স্টারের উপর তার পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার স্বীকৃতি হিসেবে, ১৯২৮ সালে তাকে OARF (Officers Academic republican francaise) সম্মানসূচক উপাধি ও পদক প্রদান করেন। কলকাতায় ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত মারফত তাকে এ সম্মান জানানো হয়। এর আগে কোনো বাঙ্গালি ফ্রান্স সরকারের এমন সম্মান অর্জন করার সৌভাগ্য লাভ করেননি। তাকে সদস্য করে নেয়া হয় Association francaise des Observateurs detoiles Variables (AFOEV) এবং ব্রিটিশ এস্ট্রোনমিক্যাল এসোসিয়েশনে।

১৯২০ থেকে ১৯৫৪ সালের ভেতর প্রায় ৩৮ হাজার ভ্যারিয়েবল স্টার পর্যবেক্ষণ করে এ সমস্ত সংগঠনকে তার পর্যবেক্ষণ সম্বন্ধে জানান। এত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও একজন বাঙালি জ্যোতির্বিদের এমন অসাধারণ কর্মকে বিশ্ব নতশিরে সম্মান জানায়।

দেশে-বিদেশে তার অসাধারণ কীর্তি নিয়ে তাকে প্রশংসার জলে ভাসানো হলেও শেষ জীবনটা তার কেটেছিল অনেক দারিদ্র্য আর অবহেলার মধ্য দিয়ে। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর তিনি ভারতে চলে যান। আভসো থেকে পাঠানো সেই টেলিস্কোপটি বেনাপোল স্থলবন্দর থেকে কর্মকর্তারা তার কাছ থেকে কেড়ে রেখে দেয়। পরে যদিও যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স সরকারের সাথে যোগাযোগের পর যশোরের জেলা প্রশাসক নিজে গিয়ে তার বাড়িতে টেলিস্কোপটি তাকে ফেরত দিয়ে আসেন।

ভারতে যাওয়ার পর তিনি যথেষ্ট আর্থিক দুরবস্থার মধ্যে পড়েন। অভাব অনটনে খাবারের সংস্থান করতেও তার সংগ্রাম করতে হতো। বারাসাতের দুর্গাপল্লীতে ১৯৭৫ সালে ৯৭ বছর বয়সে প্রায় বিনা চিকিৎসায় তিনি মারা যান। মৃত্যুর সময় তার প্রায় সমস্ত বইপত্র এবং তিন ইঞ্চির সেই দূরবীক্ষণ যন্ত্রটি তিনি দান করে দিয়ে যান বারাসাতের সত্যভারতী বিদ্যাপীঠে।

কোনোরকম ডিগ্রি বা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই তিনি যে প্রজ্ঞা ও বিচক্ষণতার সাথে সকল সীমাবদ্ধতার মধ্যেও জ্যোতির্বিজ্ঞানে অসামান্য অবদান রেখেছেন এর জন্যে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন আমাদের হৃদয়ে।

তথ্যসূত্র

  1. Rajesh Kochhar and Jayant Narlikar, Astronomy in India: Past, Present and Future (IUCAA, Pune and IIA, Bangalore, 1993)
  2. Otto Struve and Velta Zebres, Astronomy in the 20th Century (Macmillan Co., New York, p. 354, 1962)
  3. Nature, Vol. 107, No. 2700, p. 694 (1921)
  4. Monthly Reports and Annual Reports of the American Association of Variable Star Observers, p. 133 (1926)
  5. বিজ্ঞান সাধক রাধাগোবিন্দ, অমলেন্দু বন্দোপাধ্যায়
  6. বাংলার জ্যোতির্বিদ রাধাগোবিন্দ চন্দ্র- নাঈমুল ইসলাম অপু
  7. তিন অবহেলিত জ্যোতিষ্ক- রণতোষ চক্রবর্তী

শ্লথ কেন শ্লথগতির?

থমাস জেফারসন ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের তৃতীয় প্রেসিডেন্ট। ১৭৭৬ সালে কর্ণেল স্টুয়ার্ট একটি বক্সে করে তাকে ফসিল হয়ে যাওয়া কোনো এক অজানা প্রাণীর অস্থি পাঠান। ভার্জিনিয়ার একটি গুহার ভেতর এই অস্থিগুলো পাওয়া গিয়েছিল।

অস্থিগুলোর ভেতরে বেশ দীর্ঘ ও ধারালো নখযুক্ত পায়ের হাড় থাকায় তিনি ধরে নিয়েছিলেন এগুলো কোনো সিংহের ফসিলের অংশ। তাই ১৭৯৭ সালের মার্চে ফিলাডেলফিয়াতে অনুষ্ঠিত হওয়া আমেরিকান ফিলোসফিক্যাল সোসাইটির কনফারেন্সে জেফারসন Certain Bones শিরোনামে একটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সেই প্রবন্ধে তিনি মন্তব্য করেন এগুলো বড় আকৃতির কোনো সিংহের অস্থি।

এদের মধ্যে ধারালো নখর বিশিষ্ট অস্থি থাকায় তিনি সিংহের নামকরণ করেন Megalonyx, যার সরল অর্থ Giant Claw। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো জেফারসনের বাক্সের হাড়গুলো কিন্তু সিংহের ছিল না। সেগুলো এসেছিল বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া দানবাকৃতির শ্লথ হতে।

ডাঙ্গায় ঘুরে বেড়ানো প্রাগৈতিহাসিক শ্লথগুলোর আবির্ভাব হয়েছিল প্রায় ৩৫ মিলিয়ন বছর আগে। উত্তর, দক্ষিণ আর মধ্য আমেরিকা মহাদেশের প্রায় পুরোটা জুড়ে বেশ কয়েক প্রজাতির শ্লথ দেখতে পাওয়া যেত। তখনকার Megalonychidae গোত্রের কিছু শ্লথ এখনো টিকে আছে যেগুলোর আকার বড়সড় বিড়ালের মতো। কিন্তু শ্লথের অধিকাংশ প্রজাতিগুলোই ছিল দানবীয় আকারের। পরবর্তীতে গবেষকরা দেখতে পান, জেফারসনের কাছে যে শ্লথের যে অস্থিগুলো গিয়েছিল সেগুলো ছিল Megalonyx গণের অন্তর্ভুক্ত।


চিত্র: জেফারসন এই ফসিল হয়ে যাওয়া অস্থিগুলোই পেয়েছিলেন

এদের ওজন ছিল প্রায় টন খানেক। এর চেয়েও বড় ছিল Megatherium গণের শ্লথগুলো। এরা ওজনে ছিল প্রায় ছয় মেট্রিক টন আর আকার আকৃতিতেও ছিল প্রমাণ সাইজের হাতির সমান। তারা নিজেদের বাহুর ওপর ভর দিয়ে জঙ্গল কিংবা সাভানার ভেতর দিয়ে চলাফেরা করে বেড়াত। তীক্ষ্ম ও ধারালো নখগুলো তাদের খাবার খেতে ও গাছে উঠতে সাহায্য করত।

চিত্র: Megalonychidae গোত্রভুক্ত শ্লথ

শ্লথেরা বিবর্তনের ধারায় বেশ কয়েক মিলিয়ন বছর টিকে ছিল। কিন্তু প্রায় দশ হাজার বছর আগ থেকে অন্যান্য বেশ কিছু দানবাকৃতির প্রাণীর সাথে সাথে বিলুপ্ত হতে শুরু করে। বিজ্ঞানীরা মনে করেন আসন্ন বরফ যুগ কিংবা ঐ অঞ্চলে ধীরে ধীড়ে মানুষের অনুপ্রবেশের ফলেই স্থলচর দানবাকৃতির শ্লথেরা বিলুপ্ত হতে শুরু করে।

শ্লথেরা উদ্ভিদভোজী হওয়ায় গাছের শীর্ষে তারা খাবার জন্যে প্রচুর পাতার সরবরাহ পায় আর গাছের শীর্ষদেশে থাকলে যেকোনো শিকারি প্রাণী সহজে তাদের আক্রমণ করতে পারবে না- মূলত এই দুটি সুবিধা থেকেই কিছু ছোট আকৃতির শ্লথ গাছের শীর্ষদেশে উঠে সেখানেই বসবাস করতে শুরু করে।

উত্তর, দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকার রেইনফরেস্টে বর্তমানে মাত্র ছয় প্রজাতির শ্লথ টিকে আছে।

চিত্র: মানুষের সাপেক্ষে স্থলচর শ্লথগুলোর আকৃতির তুলনা

শ্লথগতির ইতিবৃত্ত

প্রাণীরা খাদ্য থেকে শ্বসন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শক্তি (ATP) উৎপাদন করে। এ শক্তিই তাকে দৈনন্দিন জীবনের সকল কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সাহায্য করে। এ শক্তির মাধ্যমেই প্রাণী তার সকল জৈবনিক ক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করে পরিবেশে টিকে থাকে। তাই শ্বসন প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন শক্তির পরিমাণ প্রাণী কর্তৃক গৃহীত খাদ্যের প্রকৃতির উপর নির্ভর করে।

বিবর্তনের ধারার একটা সময়ে গাছের শীর্ষদেশে বসবাস শুরু করতে থাকা শ্লথ ধীরে ধীরে সে পরিবেশেই অভিযোজিত হতে থাকে। সেই খাদ্যাভ্যাসেই তারা অভ্যস্ত হয়ে যায়। বিশেষত Bradypus গণের শ্লথগুলো খাদ্যের জন্য শুধুমাত্র গাছের পাতার উপর নির্ভর করে থাকে। গাছের পাতা থেকে প্রাপ্ত শক্তির পরিমাণ অন্যান্য ফল মূল কিংবা আমিষ খাদ্য থেকে প্রাপ্ত শক্তির তুলনায় অনেক কম। তাই শুধুমাত্র গাছের পাতা খেয়ে বেঁচে থাকা শ্লথগুলো অন্যান্য প্রাণীগুলোর তুলনায় বেশ কম শক্তি উৎপন্ন করে।

চিত্র: Bradypus শ্লথ

তাই শ্লথদের স্বল্প শক্তি দ্বারা সকল জৈবনিক কার্যাবলী সম্পন্ন করার জন্য তাদের নিজেদের শারীরবৃত্তীয় আচরণে পরিবর্তন এসেছে। সে অনুযায়ী খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্যে তাদেরকে বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য অর্জন করতে হয়েছে।

প্রথমত, শ্লথেরা খাদ্য থেকে নির্যাস হিসেবে সর্বোচ্চ শক্তিটুকু গ্রহণ করে। তাদের পুরো শরীরের অর্ধেকেরও বেশি অংশ জুড়ে কয়েক প্রকোষ্ঠ বিশিষ্ট পাকস্থলি রয়েছে। প্রজাতিভেদে একবার খাদ্য গ্রহণ করবার পর তা সম্পূর্ণরূপে পরিপাক করতে শ্লথের পাঁচ থেকে সাত দিন সময় লাগে। এভাবে তারা খুব চমৎকার উপায়ে শক্তি সঞ্চয় করে রাখে।

দ্বিতীয়ত, দৈনন্দিন জীবনে তারা যত অল্প সম্ভব ঠিক ততটুকুই শক্তি ব্যয় করে। যেমন এরা না পারতে একদম নড়াচড়া করে না। এরা বেশিরভাগ সময়ই খাদ্য গ্রহণ করে বা বিশ্রাম নিয়ে কিংবা ঘুমিয়ে কাটায়। সপ্তাহে একবার প্রাকৃতিক কর্মের জন্য বিরতি নেয়। বিরতিকর্ম সম্পাদনের জন্য গাছ থেকে নামার সময়েও খুব ধীরে সুস্থে নড়াচড়া করে। এরা এক মিনিটে মোটামুটি পনেরো গজের মতো পাড়ি দেয়। ধীর গতির কারণে তারা মাটিতে নেমে আসলে খুব সহজেই শিকারির আক্রমণের শিকার হতে পারে।

যেহেতু শ্লথের খুব দ্রুত চলাচল করতে হয় না তাই শ্লথের খুব বেশি পেশিরও দরকার পড়ে না। প্রকৃতপক্ষে এদের সমান আকৃতির যেকোনো প্রাণীর চেয়ে এদের পেশির পরিমাণ প্রায় ৩০ শতাংশ কম।

নিজেদের দেহের তাপমাত্রা ধরে রাখতেও খুব বেশি শক্তি ব্যয় করতে হয় না। কারণ অন্যান্য যেকোনো স্তন্যপায়ী প্রাণীর চেয়ে তাদের শরীরের তাপমাত্রা পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে প্রায় পাঁচ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠানামা করতে পারে।

এই শারীরবৃত্তীয় ও আচরণগত অভিযোজন এবং নিজেদের অর্জিত বৈশিষ্ট্য শ্লথের শক্তির ব্যয় কমিয়ে তা পরিমিত পরিমাণে খরচ করতে সাহায্য করে। প্রসঙ্গত, তিন পায়ের পাতা বিশিষ্ট শ্লথগুলো (Bradypus) প্রাণিজগতের সবচেয়ে ধীর বিপাক হার সম্পন্ন প্রাণী।

শ্লথের এই ধীর গতি তাদেরকে এভাবে শুধুমাত্র পরিবেশে টিকে থাকতে সাহায্য করে তাই-ই নয় বরং বিভিন্ন শ্যাওলা, ছত্রাক ইত্যাদির পোষক হিসেবেও কাজ করে। শ্যাওলার আবরণ আবার বনের ভেতর শিকারির আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্যে ছদ্মবেশ হিসেবে কাজ করে, যা তাদেরকে টিকে থাকার জন্য কিছুটা অতিরিক্ত সুবিধা প্রদান করে।

বিবর্তনের ধারায় শ্লথ হয়তো তার অতিকায় দানবীয় চেহারা হারিয়েছে। কিন্তু শারীরবৃত্তীয় ও আচরণগত বৈচিত্র্যের দিক থেকে শ্লথ কিন্তু কম আকর্ষণীয় নয়।

তথ্যসূত্র

  1. Goaman, Karen, and Amery, Heather. Mysteries and Marvels of the Animal World. London: Usborne, 1983: 30.
  2. Stewart, Melissa (November 2004). “Slow and Steady Sloths”. Smithsonian Zoogoer. Smithsonian Institution. Retrieved 2009-09-14.
  3. Gilmore, D. P.; Da Costa, C. P.; Duarte, D. P. F. (2001-01-01). “Sloth biology: an update on their physiological ecology, behavior and role as vectors of arthropods and arboviruses”. Brazilian Journal of Medical and Biological Research. 34 (1): 9– doi:10.1590/S0100-879X2001000100002. ISSN 0100-879X.