কেন জন্মায় রোবটের প্রতি মায়া?

পিক্সার এনিমেশনের চমৎকার সৃষ্টি WALL-E নামের এনিমেটেড চলচ্চিত্র। এ নামে সে মুভিতে চমৎকার একটি রোবট থাকে। আদুরে রোবটটি যখন তার ভালোবাসার সন্ধানে মহাকাশের এক স্থান থেকে আরেক স্থানে ঘুরে বেড়ায় তখন সকলের মন ছুঁয়ে যায়। যদিও WALL-E এখানে নিছকই একটি রোবট কিন্তু তবুও তার সামান্য মানুষের মতো নিষ্পাপ চেহারাটি দর্শকদের মনের কোণে মানবিক অংশে স্থান করে নেয়। সাধারণ মানুষের বেলায় যেমন অনুভব করতো এই রোবটের বেলাতেও তেমনই অনুভব করে।

মজার ব্যাপার হলো দর্শক তার প্রতি হৃদয়ে যে সহানভূতি অনুভব করে তা শুধুমাত্র চলচ্চিত্রটির গল্প ও শৈল্পিকতার কারণে নয়। কয়েকজন মানুষের উপর পরীক্ষা চালিয়ে দেখা গেছে, একজন মানুষকে কষ্টে দেখলে আরেকজন মানুষের মস্তিষ্কে যেসব কার্যক্রম হয়, রোবটকে কষ্টে দেখলেও মস্তিষ্কে একই রকম ঘটনা ঘটে।

জার্মানির ডুইশবার্গ এশেন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক fMRI ব্যবহার করলেন ১৪ জন অংশগ্রহনকারী মানুষের উপর। তাদেরকে প্রথমে মানুষ, রোবট এবং প্রাণহীন কিছু বস্তুর ভিডিও দেখানো হলো। সেসব ভিডিওতে তাদের উপর স্নেহপূর্ণ কিংবা রূঢ় আচরণ করা হচ্ছে। fMRI ব্যবহার করে বিজ্ঞানীগণ ভিডিও দেখার পর মানুষগুদের প্রতিক্রিয়া, মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহ ইত্যাদি পর্যালোচনা করলেন। গবেষণা দল লন্ডনে অনুষ্ঠিত এক কনফারেন্সে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেন।

ফলাফলে দেখা যায় তারা অংশগ্রহণকারীদেরকে ডায়নোসরের মতো দেখতে Pleo নামের একটি রোবটের ভিডিও দেখান। এটিকে খাওয়ানো হচ্ছে অথবা সুড়সুড়ি দেওয়া হচ্ছে। তখন দর্শকদের মস্তিষ্কের লিম্বিক অংশ কার্যকর হয়ে উঠে। এ অংশটি অনুভূতির সাথে জড়িত। আবার একইভাবে যখন তাদের মানুষের ভিডিও দেখানো হয়, যাকে ম্যাসাজ করে দেওয়া হচ্ছে, তখনো নিউরনের প্রতিক্রিয়া আগের মতোই হয়।

image source: telegraph.co.uk

এবার উলটো ধরনের ভিডিও দেখানো হলো। মানুষ এবং রোবট উভয়ের সাথে বেশ রুঢ় আচরণ করা হচ্ছে এমন ভিডিও। তাদেরকে ঝাঁকানো হচ্ছে অথবা ফেলে দেওয়া হচ্ছে অথবা প্লাস্টিক ব্যাগ দিয়ে শ্বাসরোধ করা হচ্ছে। আশ্চর্যজনকভাবে, fMRI তে যে ফলাফল পাওয়া গেল তা হলো, মানুষকে খারাপ অবস্থায় দেখার চেয়ে রোবটকে খারাপ অবস্থায় দেখার পর অংশগ্রহনকারীদের লিম্বিক সিস্টেমের প্রতিক্রিয়া অনেক অনেক বেশি।

দেখা যাচ্ছে একজন মানুষ, অন্য মানুষ বা রোবট কিংবা উভয়ের প্রতিই সহানুভূতি অনুভব করে। আমরা এখনো ভালোভাবে জানি না এ সহানুভূতির কারণ আসলে কী।

রোবোটিক্স গবেষণায় বর্তমানে একটি বড় লক্ষ্য হচ্ছে মানুষের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে পারে এমন রোবট তৈরি করা। এ ধরনের রোবট বৃদ্ধ ও অসুস্থ মানুষের দেখাশোনার ক্ষেত্রে বেশ কাজে আসতে পারে। কিছু সায়েন্স ফিকশনে তো রোবটের সাথে মানুষের ঘর বাঁধাও হয়ে গেছে।

দীর্ঘ সময় ধরে করা একটি গবেষণায় দেখা যায়, ৬ জন অংশগ্রহণকারীর মধ্যে ২ জন অত্যন্ত সুন্দরভাবে রোবটের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে সক্ষম হয়। তারা রোবটের সাথে কথা বলে, একটি নামে ডাকে, এমনকি তাদেরকে রোবটের সাথে হাসতেও দেখা যায়।

রোবটের জন্য সহানুভূতি হয়তো অনেকটা তাদের শারীরিক গঠনের উপরও নির্ভর করে। তাদের চেহারা, আচরণ, দুই পায়ে হাঁটে কিনা,  ইত্যাদি সবকিছু তাদের সাথে মানুষের স্থায়ী সম্পর্ক স্থাপনে সাহায্য করে।

এখানে আনক্যানি ভ্যালি তত্ত্বের কথা বলা যায়। এ তত্ত্ব অনুসারে, যেসব রোবট বা অ্যানিমেশন দেখতে মানুষের মতো নয়, দর্শক তাদের কম পছন্দ করে। Roomba নামে একটি রোবটের কথা উল্লেখ করা যায়। সে ঘর সংসারের সকল কাজ করতে পারতো। একদিন সেটি আগুনে পুড়ে যায়। তার চেহারা মানুষের মতো ছিল না, কিন্তু মানুষ ঠিকই তার প্রতি সহানুভূতি অনুভব করেছে। এক্ষেত্রে দেখা যায় চেহারা মানুষের মতো না হলেও সহানুভূতি অনুভব করে মানুষ। মানব মন তথা মানব মস্তিষ্ক বড়ই রহস্যজনক।

তথ্যসূত্র: স্মিথসোনিয়ান ডট কম

featured image: bbport.ru

ঋতুস্রাবের কারণ ও বিচিত্র ইতিহাস

মেয়েটির বয়স যখন কেবল এগারো তখনই হয়তো তার পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব (menstruation) এর অভিজ্ঞতা হয়। তারপরের কয়েক বছর তা শুধু বিব্রতকর পরিস্থিতির কারণই হয়ে দাঁড়ায় না, সাথে তাকে সহ্য করতে হয় অসম্ভব যন্ত্রণাদায়ক ব্যথা। এসময়টা হট ওয়াটার ব্যাগ নিয়ে তাকে কুঁকড়ে থাকতে হয় বিছানায়, সামান্য নড়াচড়া করাটাও যেন হয়ে ওঠে বিশাল যন্ত্রণা। অধিকাংশ মেয়েদেরকেই এই অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে যেতে হয়।

মজার ব্যাপার হলো একদমই অল্প কিছু ব্যতিক্রম বাদে অন্যান্য প্রাণীদের এই পিরিয়ডের ঝামেলা নেই। তাই এই প্রক্রিয়াটি কিছুটা রহস্যজনকও বটে। ঋতুস্রাব কেন হয়? কেন শুধু মানুষের মাঝেই এটি দেখা যায়? এটি দরকারি হয়ে থাকলে অন্যান্য প্রাণীদের বেলায় কেন নেই?

ঋতুচক্র প্রজননের একটি অংশ। নারীর প্রজনন প্রক্রিয়া প্রতি মাসে দুটি হরমোন ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরনের প্রতি সাড়া দেয়। প্রতিমাসে জরায়ুর সবচেয়ে ভেতরের স্তর, এন্ডোমেট্রিয়াম গর্ভধারণের জন্য উপযোগী হয়ে ওঠে ঋতুস্রাবের সাহায্যে।

এন্ডোমেট্রিয়াম কতগুলো স্তরে সজ্জিত এবং রক্তনালিকা সমৃদ্ধ। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে গর্ভধারণ না করলে প্রোজেস্টেরন লেভেল কমতে থাকে। এন্ডোমেট্রিয়াল টিস্যু এবং রক্তনালিকাগুলো তখন ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় এবং যোনিপথে বেরিয়ে যায়। এই রক্তপাতকেই বলে ঋতুস্রাব বা পিরিয়ড। সাধারণত প্রতি ২৮ দিন পর পর এই চক্র সম্পন্ন হয়ে থাকে।  এই চক্রকে বলে ঋতুচক্র।

একজন নারীর ঋতুস্রাবের সময় গড়পড়তা ৩  থেকে ৭ দিন। এই সময়ে মোটামুটি ৩০ থেকে ৯০ মিলিলিটার  ফ্লুইড দেহ থেকে বেরিয়ে যায়। এই ফ্লুইডে থাকে রক্ত, মিউকাস ও এন্ডোমেট্রিয়ামের ভাঙা অংশ। এই পরিমাণটা জানা খুব সহজ, ব্যবহার করার আগের ও পরের স্যানিটারী ন্যাপকিনের ভরের পার্থক্য থেকেই বের করা যায়।

অনেকেই এই প্রক্রিয়াটিকে অপ্রয়োজনীয় একটি বিষয় বলে মনে করে। তাই স্বাভাবিকভাবেই মনে প্রশ্ন জাগে এর প্রয়োজনীয়তা কী? কেন এটা হয়? আগে মনে করা হতো ঋতুস্রাব হয়ে থাকে নারীদেহ থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেবার জন্য। ১৯০০ সালের দিকের বেশিরভাগ গবেষণা মেয়েদের ঋতুস্রাবকে ট্যাবু হিসেবে উপস্থাপন করেছে। এমনকি কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই ধারণা এখনো রয়ে গেছে।

১৯২০ সালে Bela Schick নামের একজন বিখ্যাত শারীরতত্ত্ববিদ ‘Menotoxin’ শব্দটি ব্যবহার করেন। তিনি একটি গবেষণা করেছিলেন যেখানে দুইজন মহিলা হাতে কিছু ফুল নিয়ে ধরে থাকেন। একজনের পিরিয়ড চলছিল এবং আরেকজন স্বাভাবিক ছিলেন। schick প্রস্তাব করেন, পিরিয়ড চলাকালীন মহিলার চামড়া থেকে বিষাক্ত পদার্থ (menotoxin) নিঃসৃত হয় যার কারণে ফুল নেতিয়ে পড়ে।

তিনি আরো বলেন, পিরিয়ডকালীন এই বিষাক্ত পদার্থ ইস্টের বংশবৃদ্ধিও রহিত করে দেয়। তার ধারণা ছিল এই বিষাক্ত পদার্থটি পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে নারীর ঘামের সাথে নিঃসৃত হয়ে থাকতে পারে। কয়েকজন বিজ্ঞানী আবার তাকে সমর্থনও জানালেন। তারা বললেন, পিরিয়ড চলাকালীন একজন মহিলা তার গা থেকে নিঃসৃত বিষাক্ত পদার্থ দিয়ে গাছের বৃদ্ধি রহিত করে ফেলতে পারে, এমনকি বিয়ার, ওয়াইন, পিকেলসও নষ্ট করে ফেলতে পারে।

চিত্রঃ না, ঋতুস্রাব চলাকালীন নারী ফুলের নেতিয়ে পড়ার কারণ নয়

ত্রুটিপূর্ণ গবেষণা

গবেষক Clancy আবার মত প্রকাশ করেন, এসব গবেষণা ত্রুটিপূর্ণ ছিল। এগুলো করা হয়েছিল সেই সময়ে যখন সমাজে মেয়েদের অবস্থান ছিল অত্যন্ত নিচের দিকে। বলা যায় অনেকটা পরিকল্পতভাবেই এমন ত্রুটিপূর্ণ গবেষণা করা হয়েছিল। এসব গবেষণার সাহায্যে এটি কখনোই প্রমাণ হয় না যে, আসলেই মেনোটক্সিন নামক কোনো বিষাক্ত কিছু পিরিয়ডের সময় নিঃসৃত হয়।

১৯২৩ সালে ঋতুস্রাব নিয়ে আরেকটি অনুমান জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার Margie Profet প্রস্তাব করেন, নারীদেহে শুক্রাণুর সাথে যে রোগজীবাণু প্রবেশ করে তাদের থেকে রক্ষার জন্যই ঋতুস্রাব হয়ে থাকে। Clancy আবার এসময় বলেন যে, “আসলে পুরুষেরাই হলো অপরিচ্ছন্ন, পুরুষের এই অপরিচ্ছন্নতার জন্য প্রবেশকৃত রোগ জীবাণু দূর করার জন্যই মেয়েদের ঋতুস্রাব হয়।”

চিত্রঃ শুক্রাণুই কি নারীর ঋতুস্রাবের কারণ?

উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে profet এর ধারণার খুব তাড়াতাড়িই মুখ থুবড়ে পড়ে। কেননা তার ধারণা সঠিক হলে ঋতুস্রাবের আগে জরায়ুতে অনেক রোগজীবাণু থাকার কথা ছিল, কিন্তু এমনটা হয় না। এমনকি কিছু কিছু গবেষণা এটাও বলে যে ঋতুস্রাব ইনফেকশনের কারণ হতে পারে। সেখানে ব্যাকটেরিয়া রক্তে ভালো বংশবিস্তার করতে পারে। এখানে আয়রন, প্রোটিন, সুগার সবই থাকে। আবার ঋতুস্রাবের সময় যোনিপথের আশেপাশে মিউকাসের পরিমাণ কম থাকে, ফলে ব্যাকটেরিয়ার জন্য বেঁচে থাকা খুবই সুবিধাজনক হয়।

শক্তির ব্যবহার

Profet এর সমালোচকদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন মিশিগান ইউনিভার্সিটির Beverly Strassmann. ১৯৯৬ সালে তিনি নিজের ধারণা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন ঋতুস্রাব বোঝার জন্য শুধু মানুষের উপর গবেষণা করলেই চলবে না,অন্যান্য স্তন্যপায়ীদের বংশবিস্তার সমন্ধেও গবেষণা দরকার। তাদের প্রক্রিয়াও আলোচনায় আনা জরুরী। তার মতে, জরায়ুর মধ্যকার একটি পুরু রক্তনালিকা সমৃদ্ধ স্তরকে সবসময় বাঁচিয়ে রাখতে অনেক শক্তির প্রয়োজন হয়। অন্যান্য স্তন্যপায়ীর ক্ষেত্রেও জরায়ুর ভেতরের স্তরটি থাকে। গর্ভধারণ না করলে স্তরটির ভেতরের পদার্থগুলো শোষিত হয়ে যায় অথবা ভেঙে বেরিয়ে যায়। স্ট্রেসম্যানের মতে,স্তরটি ভেঙে আবার তৈরি করতে কম শক্তির প্রয়োজন হয়।

তিনি আসলে এখানে শক্তির মিতব্যয়ীতা বোঝাতে চেয়েছেন,রক্তপাতের কারণ ব্যাখ্যা করতে চাননি। অবশ্য নারীদেহ সম্পূর্ণ রক্ত শোষণ করতে পারবে কিনা এটাও একটা প্রশ্ন থেকে যায়। অনেক বেশি পরিমাণ রক্ত হলে ঋতুস্রাবই ভালো পন্থা। কিছু প্রজাতির ক্ষেত্রে এ ধরনের রক্তপাত অভিযোজন নয় বরং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।

মায়ের সাথে গভীরভাবে প্রোথিত

লিভারপুল ইউনিভার্সিটির Colin Finn এমনই আরেকটি ধারণা দেন ১৯৯৮ সালে। তার মতে শক্তি সংরক্ষণের জন্য নয় বরং ডিম্বাণুর বেড়ে ওঠার জন্য ঋতুস্রাব প্রয়োজনীয়। ফিনের মতে ভ্রুণ বিভিন্ন স্তরের সাহায্যে মায়ের শরীরের সাথে খুব গভীরভাবে প্রোথিত থাকে। যার কারণে নির্দিষ্ট সময় পর পর কিছু সময়ের জন্য জরায়ু গর্ভধারণের জন্য যথাযথভাবে তৈরি থাকে। সময়মতো গর্ভধারণ না করলে উপরের স্তর আবার ভেঙে যায়।

উপরের দুটি ধারণাই সঠিক হতে পারে। সত্য অনুসন্ধানের জন্য আমাদের তুলনা করতে হবে অন্যান্য প্রজাতির সাথে যাদের ঋতুস্রাব হয় আর যাদের হয় না। মানুষ ছাড়া আর যেসব প্রাণীর ঋতুস্রাব হয় তাদের অধিকাংশই প্রাইমেট বর্গের অন্তর্ভুক্ত। বানর, এপ, মানুষ সবাই আছে এর মাঝে।

ঋতুস্রাব হয় এমন একটি প্রজাতি হলো rhesus macaques. বড় আকারের এপের ক্ষেত্রেও এটি দেখা যায়। এছাড়া শিম্পাঞ্জি আর গিবনের ক্ষেত্রে এটি প্রায়ই দেখা যায়। গরিলা আর ওরাং-ওটাং এর মধ্যে অবশ্য বহুলভাবে দেখা যায় না। অন্যান্য প্রাইমেটদের মধ্যে টারশিয়ারের ঋতুস্রাব দেখা যায়, তবে খুব বিরল।

চিত্রঃ rhesus macaques, এদের মানুষের মতো ঋতুস্রাব হয়

পরিচিত প্রাণীদের মধ্যে হাতি আর বাদুরের ঋতুস্রাবীয় রক্তপাত হয়ে থাকে। নিউ ইয়র্ক স্টেট ইউনিভার্সিটির John Rasweiler এর মতে বাদুরের দুইটি গোত্র, free tailed bats এবং leaf-nosed bats এর পিরিয়ড হয়ে থাকে।

ঋতুস্রাব হয় এমন প্রাণী খুবই অল্প

উপরে উল্লেখিত প্রজাতিদের ঋতুস্রাব মোটামুটি মানুষের মতোই। শর্ট টেইলড ফ্রুট বাদুরের রজঃচক্র ২১–২৭ দিনের যেমনটা হয় মানুষের। বাদুরের ক্ষেত্রে এটি অবশ্য মানুষের মতো তেমন স্পষ্ট নয়। স্পষ্ট না হওয়া সত্ত্বেও এটি বোঝা যায় কারণ এই বাদুরগুলোর জরায়ুকে ঘিরে ছোট ছোট রক্তনালিকা থাকে। দেখা যাচ্ছে ঋতুস্রাব হয় এমন প্রজাতি হাতে গোনা যায়। মানুষ, এপ, বানর, বাদুর এবং হাতী।

ভ্রুণ হতে আসা সংকেত নিয়ন্ত্রণ করে জরায়ুর পরিবর্তন

ইয়েল ইউনিভার্সিটির Deena Emera’র মতে, একজন মায়ের তার জরায়ুর উপর কতটুকু নিয়ন্ত্রণ আছে সেটি তার নিজের উপরই নির্ভর করে। ২০১১ তে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে ইমেরা এবং তার সহকর্মীগণ উল্লেখ করেন, ঋতুস্রাব হয় এমন প্রাণীদের জরায়ুর ভেতরের স্তরটি সম্পূর্ণরূপে মায়ের দেহের প্রোজেস্টেরন হরমোন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।

ভ্রুণ শুধুমাত্র তখনই জরায়ুতে স্থাপিত হয় যখন জরায়ুর ভেতরের দেয়াল পুরু আর বড় বিশেষায়িত কোষযুক্ত হয়। একজন মহিলা নিজেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তিনি গর্ভবতী হবেন কিনা। এই ক্ষমতাকে বলে ‘spontaneous decidualisation.

অধিকাংশ স্তন্যপায়ীর ক্ষেত্রে ভ্রুণ হতে আসা সংকেত জরায়ুর পরিবর্তন নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। গর্ভাবস্থার প্রতি সাড়া দিতেই জরায়ুর পরিবর্তন হয়ে থাকে। ইমেরার মতে, “যেসব প্রজাতির ঋতুস্রাব হয় এবং যারা spontaneous decidualisation ক্ষমতা প্রদর্শন করে তাদের মধ্যে একটি বিশেষ আন্তঃসম্পর্ক রয়েছে।”

এর উপর ভর করেই তিনি মূল জিজ্ঞাসা খুঁজে বের করেন- “কিছু প্রজাতির ক্ষেত্রে কেন গর্ভাবস্থা মা নিজেই নিয়ন্ত্রণ করে আর কিছু প্রজাতির তা নিয়ন্ত্রিত হয় ভ্রুণ দ্বারা?” তিনি মত প্রকাশ করেন spontaneous decidualisation ক্ষমতাটা তৈরি হয়েছে মা এবং ভ্রুণের মধ্যে সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য।

এই প্রশ্নের উত্তরে প্রাইমেটদের ক্ষেত্রে এবার দুটি সম্ভাবনা দেখানো যায়। প্রথমটি হলোঃ spontaneous decidualisation (গর্ভাবস্থা নিয়ন্ত্রণে মায়ের ক্ষমতা), যা আক্রমণাত্মক ফিটাস হতে মাকে রক্ষা করার জন্য বিকশিত হয়েছে।

সকল ভ্রুণই মায়ের জরায়ুতে গভীর পরিচর্যার জন্য আশ্রয় নেয়। ঘোড়া,গরু,শূকর এদের ক্ষেত্রে ভ্রুণ আলতোভাবে জরায়ুর উপরে স্থান নেয়। বিড়াল,কুকুরের ক্ষেত্রে ভ্রুণটি আরেকটু গভীরে প্রবেশ করে। কিন্তু মানুষ সহ অন্যান্য প্রাইমেটদের ভ্রুণ অত্যন্ত গভীরভাবে জরায়ু প্রাচীরে প্রোথিত হয়। কেউ কেউ এটিকে ব্যাখ্যা করেছেন এভাবে, মা আর শিশু যেন একটি “চিরায়ত রশি টানাটানি” যুদ্ধে লিপ্ত থাকে।

মা চায় তার প্রত্যেক সন্তানের জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ শক্তি বরাদ্দ রাখতে যাতে করে তার শক্তি কিছুটা বাঁচে এবং তা অন্য সন্তানকে দিতে পারে। অপরদিকে বেড়ে উঠতে থাকা বাচ্চাটি চায় তার মা থেকে যতটা সম্ভব বেশি শক্তি ব্যবহার করতে। ইমেরার মতে, “বাচ্চাটি যত আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে মা ততই সুরক্ষা ব্যবস্থা উন্নত করতে থাকে বাচ্চার আক্রমণ ঠেকানোর জন্য।”

দ্বিতীয় সম্ভাবনাটি হলো, spontaneous decidualisation ব্যবস্থাটি উন্নতি লাভ করেছে অনাকাঙ্খিত ভ্রুণ প্রতিরোধ করার জন্য। জীনগত অস্বাভাবিকতা ভ্রুণের ক্ষেত্রে খুব বেশি দেখা যায়। যার কারণে গর্ভাবস্থার প্রথম কয়েক সপ্তাহেই অনেকের গর্ভপাত হয়। এটা হতে পারে অস্বাভাবিক যৌন ক্রিয়াকলাপের কারণে।

ভ্রুণে পরিণত হওয়া ডিম্বাণুটির বয়স বেশিও হতে পারে

মানুষ যেকোনো সময় যৌন সঙ্গমে মিলিত হতে পারে যেখানে অন্যান্য প্রাণীরা শুধুমাত্র ডিম্বপাতের সময় অর্থাৎ প্রজননকালে যৌন সঙ্গম করে। এটিকে বলে সম্প্রসারিত যৌন কাল।

অন্যান্য কিছু ঋতুস্রাবীয় প্রাইমেটদের ক্ষেত্রেও এই সম্প্রসারিত যৌনকাল দেখা যায়। ফলশ্রুতিতে অনেক সময় নিষিক্ত ডিম্বাণুর বয়স বেশ বেশি থাকে, যার কারণে এতে অস্বাভাবিকতা দেখা দিতে পারে। জরায়ু পুরু হয়ে পরিবর্তিত হয়ে গেলে এটি স্বাভাবিক আর অস্বাভাবিক ভ্রুণের মাঝে পার্থক্য বুঝতে পারে। spontaneous decidualisation মাকে বাঁচানোর একটি পদ্ধতি হতে পারে। এটি মাকে অস্বাভাবিক ভ্রুণ হতে রক্ষা করে এবং নিরাপদ গর্ভাবস্থা নিশ্চিত করে।

এ থেকে একটি বিষয়ে ধারণা লাভ করা যায়, অধিকাংশ ঋতুস্রাবীয় স্তন্যপায়ীদের গর্ভকাল একটি দীর্ঘ সময়ব্যাপী হয়ে থাকে এবং তারা সন্তান ভূমিষ্ঠ করতে অধিক শক্তি বিনিয়োগ করে থাকে। এতে সন্তানের প্রতি ভালোবাসা স্বাভাবিকভাবেই অনেক বেশি হয়। ঝামেলাজনক গর্ভাবস্থা এড়ানোর জন্যই তারা বিবর্তিত হয়েছে।

সুতরাং ঋতুস্রাব বিবর্তনের একটি পার্শ্বক্রিয়া

২০০৮ সালে রেসাস বানরের উপর করা গবেষণায় দেখা গেছে, এদের ভ্রুণের ক্ষেত্রেও অস্বাভাবিকতা দেখা দিতে পারে। কিন্তু অন্যান্য প্রজাতির ক্ষেত্রে এরকম তথ্য না পাওয়ার কারণে এই গবেষণা বেশি দূর এগোয়নি। সুতরাং যতক্ষণ পর্যন্ত না আমরা spontaneous decidualisation এর কারণ খুঁজে বের করতে পারছি,ততক্ষণ ঋতুস্রাবের ধাঁধার জট খুলতে পারবো না।

স্ট্রেসম্যান,ফিন,ইমিরা সহ সকলের গবেষণা একটি দিক নির্দেশ করছে যে,ঋতুস্রাব প্রজননজনিত কারণে বিবর্তনের একটি আকস্মিক ঘটনা। যেসব প্রজাতি অন্যভাবে প্রজনন ঘটিয়ে থাকে তাদের ঋতুস্রাবের প্রয়োজন হয় না। বন্যপ্রাণীদের মধ্যে ঋতুস্রাব খুব বিরল হয়ে থাকে।

মানুষের ক্ষেত্রে,যেসকল সমাজে গর্ভনিরোধক ব্যবস্থা নেওয়ার প্রবণতা কম,তাদের ঋতুস্রাবও কম হয়। এমনকি সেসব স্থানে মানুষ এখনো প্রাকৃতিক জন্মদানের উপর নির্ভরশীল। সেখানকার মহিলারা জীবনের অধিকাংশ সময় কাটায় সন্তান জন্ম দিয়ে অথবা সন্তানকে স্তন্যদান করে।

মালির ডগন সম্প্রদায়ে গবেষণা করে স্ট্রেসম্যান আবিষ্কার করেছেন সেখানের মহিলারা জীবনে ১০০ টি পিরিয়ড পেয়ে থাকেন যেটা আমাদের প্রজাতির ক্ষেত্রে মোটামুটি স্বাভাবিক। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো স্বাভাবিক বিশ্বের মহিলারা ৩০০–৫০০ টি পিরিয়ড পান।

চিত্রঃ ডগন নারীরা নারীত্বের বেশিরভাগ সময়েই গর্ভবতী কিংবা দুগ্ধদানরত অবস্থায় থাকেন

Clancy বলেন, “এমন অনেক মহিলা আছেন যারা পিরিয়ড না হওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন। কিন্তু আসলে আমাদের দেহের স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার বিস্তৃতি আমাদের কল্পনার চেয়েও অনেক বিশাল। সুতরাং প্রতিটি সূক্ষ্ম পার্থক্য নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত না হয়ে বরং একটু সময় নেওয়াই ভাল।”

যাহোক এত বিশাল আলোচনা হয়তো একটি ১১ বছর বয়সী মেয়ের প্রথম ঋতুস্রাবের যন্ত্রণাকে কমাতে পারবে না। অন্ধবিশ্বাস ও কুসংস্কারকে ঠেলে দিয়ে আমাদের সকলের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গীই পারে এই কষ্টকে ঘুচাতে। হাজার হোক একজন মানুষ, ছেলে হোক আর মেয়ে হোক, তার জন্ম তো হয় এই ঋতুস্রাব প্রক্রিয়ার কারণেই।

তথ্যসূত্রঃ BBC Earth, http://www.bbc.co.uk/earth/story/20150420-why-do-women-have-periods

মস্তিষ্কের ডায়াগ্রাম

মানব মস্তিষ্ক একটি বিস্ময়। এটি সব ধরনের অনুভূতি ধারণ করতে পারে। সারাজীবন ধরে স্মৃতি সংরক্ষণ করতে পারে এবং সামান্য প্ররোচনাতেই সাড়া দিতে পারে। কীভাবে মস্তিষ্ক এ কাজগুলো করে সে ব্যাপারে আমরা খুব কমই জানি। মস্তিষ্ক কীভাবে কাজ করে তা পর্যবেক্ষণ করতে আমরা কি পুরো মস্তিষ্কের একটি ডায়াগ্রাম বানাতে পারি যেখানে প্রত্যেকটি নিউরন এবং সিন্যাপ্স তারের মতো পরিষ্কারভাবে চিত্রায়িত হবে? এটা কি সম্ভব?

তার আগে কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করা দরকার। মস্তিষ্কের কার্যক্রম নির্ভর করে নিউরনগুলোর সংযোগের উপর। বিভিন্ন স্তরের নিউরনের সংযোগ একটি একক সত্ত্বা হিসেবে কাজ করে। নিউরনের এই নেটওয়ার্ককে বিজ্ঞানীরা বলেন কানেকটম (Connectome)। মানব মস্তিষ্কের কানেকটমকে বৃহৎ অথবা আণুবীক্ষনিক কোনো স্কেলেই মাপা সম্ভব হয়নি। তবে গবেষণা এখন অনেক দূর এগিয়েছে। The Human Connectome Project-এ মোটামুটি ১,০০০ মানুষের মস্তিষ্কের Connectome ম্যাক্রো স্কেলে প্রকাশ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এক্ষেত্রে প্রধানত মস্তিষ্কের হোয়াইট ম্যাটার বা মায়েলিন শীথ দ্বারা মোড়ানো স্নায়ুতন্তুর Connectome নির্ণয়ের চেষ্টা করা হয়। এই কাজে ম্যাগনেটিক রেজোনেন্স ইমেজিং পদ্ধতি বা MRI ব্যবহার করা হয়।

২২ থেকে ৩৫ বছর বয়সী ৪৬০ জন মানুষের উপর গবেষণা করে দেখা যায়, যারা ভালো বৈশিষ্ট্য ধারণ করে (যেমনঃ উন্নত শিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, উন্নত স্মৃতিশক্তি ইত্যাদি) তাদের মস্তিষ্কের নিউরনগুলোর সংযোগও বেশ উন্নত হয়। অপরদিকে নেতিবাচক বৈশিষ্ট্যের অধিকারী যারা (যেমনঃ ধুমপান, মদ্যপান, উগ্র আচরণ ইত্যাদি) তাদের ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের সংযোগ আগের দলের তুলনায় তেমন উন্নত নয়। এই দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায় এটি ভবিষ্যত আচরণ সম্পর্কে ধারণা করার একটি মাধ্যম হতে পারে। কিংবা কোনো মাদকদ্রব্যের মস্তিষ্কের উপর প্রভাব কেমন তাও জানা যেতে পারে Connectome এর সাহায্যে।

হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নায়ুবিদ্যার বিশ্ববিখ্যাত গবেষক Jeff Lichtman। তিনি হিস্টোলজি (টিস্যু বিষয়ক বিজ্ঞান)-র উপর একসময় একটি কোর্স শুরু করেছিলেন। এ কোর্সের ব্যবহারিক দিক নিয়ে কাজ করার সময় বিভিন্ন রোগাক্রান্ত টিস্যু নিয়ে গবেষণা করেন। তিনি অবাক হয়ে লক্ষ্য করলেন অটিজম, সাইজোক্রেনিয়া, বাইপোলার ডিজঅর্ডার এবং স্নায়ুতন্ত্রের অন্যান্য অস্বাভাবিকতার কোনো শারীরিক লক্ষণ নেই। কিন্তু যদি ক্ষুদ্র টিস্যু স্তরে পর্যবেক্ষণ করা যায় তবে প্রদাহ কিংবা বিবর্ণতার মতো অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করা যায়। অর্থাৎ এ অসুখগুলোর ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের কোষ পর্যবেক্ষণ করে অস্বাভাবিকতা নিরূপণ করা সম্ভব।

মানব মস্তিষ্ক অন্যান্য যেকোনো অঙ্গের তুলনায় নিঃসন্দেহে জটিল। এটিকে শুধু বিস্তৃত করে দেখলেই চলে না, এটিকে বুঝতেও হয়। মস্তিষ্ক একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করে যেখানে একটি স্নায়ুকোষের সাথে হাজারো স্নায়ুকোষের সংযোগ স্থাপিত হয়।

চিত্রঃ ডেনড্রাইটের সংযোগের ক্লোজ আপ চিত্র।

Lichtman প্রান্তীয় স্নায়ুতন্ত্র নিয়ে গবেষণার সময় মানব শিশু এবং অন্যান্য স্তন্যপায়ী শিশুর স্নায়ুতন্ত্র পর্যবেক্ষণ করেন। তিনি লক্ষ্য করেন, শিশু বড় হবার সাথে সাথে স্নায়ুতন্ত্র নতুনভাবে সজ্জিত হয়। তিনি এটিকে বিভিন্ন রঙ ব্যবহার করে চিহ্নিত করতে চাইলেন। কিন্তু দেখা গেলো, এতগুলো স্তর চিহ্নিত করতে গেলে যে পরিমাণ রঙের দরকার সে পরিমাণ রঙই নেই। তবে মানুষের বেলায় করা না গেলেও এ পদ্ধতিতে একটি প্রাণীর সম্পূর্ণ Connectome চিহ্নিত করা গিয়েছিল। প্রাণীটি roundwarm, যেটির মাত্র ৩০২ টি নিউরন রয়েছে। গবেষকেরা তারপর ইঁদুরের Connectome নির্ণয়ের প্রচেষ্টা শুরু করলেন।

Lichtman এবং তার ২০ জন সহকর্মী মিলে ইঁদুরের Connectome নির্ণয়ের নতুন একটি পদ্ধতি তৈরি করলেন- নিউ ইমেজিং টেকনোলোজি। এটি আসলে ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করে ন্যানোস্কেল পর্যায়ে ব্রেইন ইমেজিংয়ের একটি পদ্ধতি। তারপর তারা ইঁদুরের মস্তিষ্কের ক্ষুদ্র একটি অংশ নিয়ে পরীক্ষা করেন এবং অ্যাক্সন ও ডেনড্রাইটের মধ্যে অপূর্ব এক নেটওয়ার্ক খুঁজে পান। Lichtman ধারণা করেছিলেন, মস্তিষ্কের বিভিন্ন অস্বাভাবিকতা নিরূপণে এ পদ্ধতি অনেক কাজে দিবে।

Connectome এর ডায়াগ্রাম বানানোর মুল প্রেরণা ছিল মস্তিষ্কে কত স্মৃতি জমা আছে তা জানার চেষ্টা। Lichtman এর মতে, জীবনের সব অভিজ্ঞতাই মস্তিষ্কে জমা রয়েছে কিন্তু এ স্মৃতিগুলো আসলে মস্তিষ্কে কী রূপে জমা আছে তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। তিনি ভেবেছিলেন, মস্তিষ্কের এ ডায়াগ্রাম বানানো সম্ভব হলে এ প্রশ্নের উত্তর মিলবে।

বিশাল তথ্যসম্ভার

এতকিছু না হলেও, মস্তিষ্কের ডায়াগ্রাম তৈরি করা সম্ভব হলে এটি মস্তিষ্ক সম্পর্কে না জানা অনেক তথ্যের বিশাল সম্ভার দিতে পারে। মস্তিষ্কের প্রতি ঘনমিলিমিটার স্থানেই প্রায় দুই টেরাবাইটের সমান তথ্য থাকা সম্ভব!

খুব মজার একটি ব্যাপার হলো, সম্পূর্ণ পৃথিবীর জন্য গুগল ম্যাপে যে পরিমাণ তথ্য রয়েছে তা মোটামুটি ২০ পেটাবাইট অর্থাৎ ২০৫০০ টেরাবাইট। মানব মস্তিষ্ককে সামগ্রিকভাবে এক মিলিয়ন ঘনমিলিমিটারের একটি বস্তু কল্পনা করলে আর প্রতি ঘনমিলিমিটারে ২ টেরাবাইত করে তথ্য থাকলে একজন মানুষের মস্তিষ্কে থাকা তথ্যের পরিমাণ হতে পারে ২ মিলিয়ন টেরাবাইট বা ২ হাজার পেটাবাইট বা ২ এক্সাবাইট! এমনকি ৩০২ টি নিউরনযুক্ত roundwarm এর ক্ষেত্রেও এ তথ্যের পরিমাণ প্রায় ১২ টেরাবাইট। প্রকৃতিতে খুব শৃঙ্খলার সাথে প্রত্যেকটি প্রাণীর সকল কাজকর্ম নিয়ন্ত্রিত হওয়ার কারণও মূলত মস্তিষ্কের এ বিশাল তথ্য সমাহার।

দৃষ্টিভঙ্গী যদি সীমিত হয় তবে বিশাল জিনিস কল্পনা করাও কঠিন হয়। মস্তিষ্কের ধারণক্ষমতা তেমনই বিশাল। আর ধীরে ধীরে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি সীমিত থেকে বিশালতার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে। তবে হঠাৎ করেই বিশাল সীমানা পার করাটা যেকোনো দিক দিয়েই ক্ষতিকর। মস্তিষ্কের এ বিশাল তথ্যসম্ভার যেকোনো মানুষের কল্পনা থেকেও অনেক বেশি জটিল। আমরা এসব তথ্য বিশ্লেষণ করতে পারি তবে তার ফলাফল এখনো আমাদের অজানা। এর জন্য আরো অনেকদিন অপেক্ষা করতে হবে।

তথ্যসূত্র

http://gizmag.com/connectome-wiring-diagram-human-brain/39659/

মস্তিষ্কের ডায়াগ্রাম

মানব মস্তিষ্ক একটি বিস্ময়। এটি সব ধরনের অনুভূতি ধারণ করতে পারে। সারাজীবন ধরে স্মৃতি সংরক্ষণ করতে পারে এবং সামান্য প্ররোচনাতেই সাড়া দিতে পারে। কীভাবে মস্তিষ্ক এ কাজগুলো করে সে ব্যাপারে আমরা খুব কমই জানি। মস্তিষ্ক কীভাবে কাজ করে তা পর্যবেক্ষণ করতে আমরা কি পুরো মস্তিষ্কের একটি ডায়াগ্রাম বানাতে পারি যেখানে প্রত্যেকটি নিউরন এবং সিন্যাপ্স তারের মতো পরিষ্কারভাবে চিত্রায়িত হবে? এটা কি সম্ভব?

তার আগে কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করা দরকার। মস্তিষ্কের কার্যক্রম নির্ভর করে নিউরনগুলোর সংযোগের উপর। বিভিন্ন স্তরের নিউরনের সংযোগ একটি একক সত্ত্বা হিসেবে কাজ করে। নিউরনের এই নেটওয়ার্ককে বিজ্ঞানীরা বলেন কানেকটম (Connectome)। মানব মস্তিষ্কের কানেকটমকে বৃহৎ অথবা আণুবীক্ষনিক কোনো স্কেলেই মাপা সম্ভব হয়নি। তবে গবেষণা এখন অনেক দূর এগিয়েছে। The Human Connectome Project-এ মোটামুটি ১,০০০ মানুষের মস্তিষ্কের Connectome ম্যাক্রো স্কেলে প্রকাশ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এক্ষেত্রে প্রধানত মস্তিষ্কের হোয়াইট ম্যাটার বা মায়েলিন শীথ দ্বারা মোড়ানো স্নায়ুতন্তুর Connectome নির্ণয়ের চেষ্টা করা হয়। এই কাজে ম্যাগনেটিক রেজোনেন্স ইমেজিং পদ্ধতি বা MRI ব্যবহার করা হয়।

২২ থেকে ৩৫ বছর বয়সী ৪৬০ জন মানুষের উপর গবেষণা করে দেখা যায়, যারা ভালো বৈশিষ্ট্য ধারণ করে (যেমনঃ উন্নত শিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, উন্নত স্মৃতিশক্তি ইত্যাদি) তাদের মস্তিষ্কের নিউরনগুলোর সংযোগও বেশ উন্নত হয়। অপরদিকে নেতিবাচক বৈশিষ্ট্যের অধিকারী যারা (যেমনঃ ধুমপান, মদ্যপান, উগ্র আচরণ ইত্যাদি) তাদের ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের সংযোগ আগের দলের তুলনায় তেমন উন্নত নয়। এই দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায় এটি ভবিষ্যত আচরণ সম্পর্কে ধারণা করার একটি মাধ্যম হতে পারে। কিংবা কোনো মাদকদ্রব্যের মস্তিষ্কের উপর প্রভাব কেমন তাও জানা যেতে পারে Connectome এর সাহায্যে।

হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নায়ুবিদ্যার বিশ্ববিখ্যাত গবেষক Jeff Lichtman। তিনি হিস্টোলজি (টিস্যু বিষয়ক বিজ্ঞান)-র উপর একসময় একটি কোর্স শুরু করেছিলেন। এ কোর্সের ব্যবহারিক দিক নিয়ে কাজ করার সময় বিভিন্ন রোগাক্রান্ত টিস্যু নিয়ে গবেষণা করেন। তিনি অবাক হয়ে লক্ষ্য করলেন অটিজম, সাইজোক্রেনিয়া, বাইপোলার ডিজঅর্ডার এবং স্নায়ুতন্ত্রের অন্যান্য অস্বাভাবিকতার কোনো শারীরিক লক্ষণ নেই। কিন্তু যদি ক্ষুদ্র টিস্যু স্তরে পর্যবেক্ষণ করা যায় তবে প্রদাহ কিংবা বিবর্ণতার মতো অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করা যায়। অর্থাৎ এ অসুখগুলোর ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের কোষ পর্যবেক্ষণ করে অস্বাভাবিকতা নিরূপণ করা সম্ভব।

মানব মস্তিষ্ক অন্যান্য যেকোনো অঙ্গের তুলনায় নিঃসন্দেহে জটিল। এটিকে শুধু বিস্তৃত করে দেখলেই চলে না, এটিকে বুঝতেও হয়। মস্তিষ্ক একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করে যেখানে একটি স্নায়ুকোষের সাথে হাজারো স্নায়ুকোষের সংযোগ স্থাপিত হয়।

চিত্রঃ ডেনড্রাইটের সংযোগের ক্লোজ আপ চিত্র।

Lichtman প্রান্তীয় স্নায়ুতন্ত্র নিয়ে গবেষণার সময় মানব শিশু এবং অন্যান্য স্তন্যপায়ী শিশুর স্নায়ুতন্ত্র পর্যবেক্ষণ করেন। তিনি লক্ষ্য করেন, শিশু বড় হবার সাথে সাথে স্নায়ুতন্ত্র নতুনভাবে সজ্জিত হয়। তিনি এটিকে বিভিন্ন রঙ ব্যবহার করে চিহ্নিত করতে চাইলেন। কিন্তু দেখা গেলো, এতগুলো স্তর চিহ্নিত করতে গেলে যে পরিমাণ রঙের দরকার সে পরিমাণ রঙই নেই। তবে মানুষের বেলায় করা না গেলেও এ পদ্ধতিতে একটি প্রাণীর সম্পূর্ণ Connectome চিহ্নিত করা গিয়েছিল। প্রাণীটি roundwarm, যেটির মাত্র ৩০২ টি নিউরন রয়েছে। গবেষকেরা তারপর ইঁদুরের Connectome নির্ণয়ের প্রচেষ্টা শুরু করলেন।

Lichtman এবং তার ২০ জন সহকর্মী মিলে ইঁদুরের Connectome নির্ণয়ের নতুন একটি পদ্ধতি তৈরি করলেন- নিউ ইমেজিং টেকনোলোজি। এটি আসলে ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করে ন্যানোস্কেল পর্যায়ে ব্রেইন ইমেজিংয়ের একটি পদ্ধতি। তারপর তারা ইঁদুরের মস্তিষ্কের ক্ষুদ্র একটি অংশ নিয়ে পরীক্ষা করেন এবং অ্যাক্সন ও ডেনড্রাইটের মধ্যে অপূর্ব এক নেটওয়ার্ক খুঁজে পান। Lichtman ধারণা করেছিলেন, মস্তিষ্কের বিভিন্ন অস্বাভাবিকতা নিরূপণে এ পদ্ধতি অনেক কাজে দিবে।

Connectome এর ডায়াগ্রাম বানানোর মুল প্রেরণা ছিল মস্তিষ্কে কত স্মৃতি জমা আছে তা জানার চেষ্টা। Lichtman এর মতে, জীবনের সব অভিজ্ঞতাই মস্তিষ্কে জমা রয়েছে কিন্তু এ স্মৃতিগুলো আসলে মস্তিষ্কে কী রূপে জমা আছে তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। তিনি ভেবেছিলেন, মস্তিষ্কের এ ডায়াগ্রাম বানানো সম্ভব হলে এ প্রশ্নের উত্তর মিলবে।

বিশাল তথ্যসম্ভার

এতকিছু না হলেও, মস্তিষ্কের ডায়াগ্রাম তৈরি করা সম্ভব হলে এটি মস্তিষ্ক সম্পর্কে না জানা অনেক তথ্যের বিশাল সম্ভার দিতে পারে। মস্তিষ্কের প্রতি ঘনমিলিমিটার স্থানেই প্রায় দুই টেরাবাইটের সমান তথ্য থাকা সম্ভব!

খুব মজার একটি ব্যাপার হলো, সম্পূর্ণ পৃথিবীর জন্য গুগল ম্যাপে যে পরিমাণ তথ্য রয়েছে তা মোটামুটি ২০ পেটাবাইট অর্থাৎ ২০৫০০ টেরাবাইট। মানব মস্তিষ্ককে সামগ্রিকভাবে এক মিলিয়ন ঘনমিলিমিটারের একটি বস্তু কল্পনা করলে আর প্রতি ঘনমিলিমিটারে ২ টেরাবাইত করে তথ্য থাকলে একজন মানুষের মস্তিষ্কে থাকা তথ্যের পরিমাণ হতে পারে ২ মিলিয়ন টেরাবাইট বা ২ হাজার পেটাবাইট বা ২ এক্সাবাইট! এমনকি ৩০২ টি নিউরনযুক্ত roundwarm এর ক্ষেত্রেও এ তথ্যের পরিমাণ প্রায় ১২ টেরাবাইট। প্রকৃতিতে খুব শৃঙ্খলার সাথে প্রত্যেকটি প্রাণীর সকল কাজকর্ম নিয়ন্ত্রিত হওয়ার কারণও মূলত মস্তিষ্কের এ বিশাল তথ্য সমাহার।

দৃষ্টিভঙ্গী যদি সীমিত হয় তবে বিশাল জিনিস কল্পনা করাও কঠিন হয়। মস্তিষ্কের ধারণক্ষমতা তেমনই বিশাল। আর ধীরে ধীরে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি সীমিত থেকে বিশালতার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে। তবে হঠাৎ করেই বিশাল সীমানা পার করাটা যেকোনো দিক দিয়েই ক্ষতিকর। মস্তিষ্কের এ বিশাল তথ্যসম্ভার যেকোনো মানুষের কল্পনা থেকেও অনেক বেশি জটিল। আমরা এসব তথ্য বিশ্লেষণ করতে পারি তবে তার ফলাফল এখনো আমাদের অজানা। এর জন্য আরো অনেকদিন অপেক্ষা করতে হবে।

তথ্যসূত্র

http://gizmag.com/connectome-wiring-diagram-human-brain/39659/

প্রাগৈতিহাসিক ওষুধপত্র

আজ থেকে প্রায় ৩০ হাজার বছর আগের কথা। শেষ বরফ যুগের কাছাকাছি। স্থানঃ পশ্চিম ইউরোপের আইবেরিয়ান পেনিনসুলার কোনো গুহার সামনের ফাঁকা একটি জায়গা। ঠিক সন্ধ্যে নামার মূহুর্তে একদল গাট্টাগোট্টা মানুষের দেখা মেলে, যাদের গায়ে ছিল অমসৃন লোমশ আবরণ। এরা ভীড় জমাতে শুরু করে ফার্ন, মস ইত্যাদি গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ দিয়ে তৈরি একটি মঞ্চের মতো জায়গার চারপাশে। মঞ্চের উপরে বসে ছিলেন দলের সবচেয়ে প্রবীন সদস্যটি। বয়স প্রায় ৪০ এর কাছাকাছি। দেখে মনে হবেতার চোখ বন্ধ, যেন তিনি ঘুমাচ্ছেন। গায়ের চামড়া ফ্যাকাশে আর নিঃশ্বাস ধীরগতির। হঠাৎতাকে ঘিরে থাকা দর্শকের মধ্যে মৃদু গুঞ্জন শোনা গেল। একসময় তারা স্তব গাইতে শুরু করল। এর মধ্যে কেউ কেউ আবার হাত তুলে অস্ত যাওয়া সূর্যের দিকে ইঙ্গিত করতে লাগলো। আগুনের ঝিকিমিকি ছটার মাঝে কমবয়সী একজন তরুণী আর্তনাদের মতো শব্দ করে সামনে লাফিয়ে এগিয়ে আসলো এবং তিক্ত গন্ধযুক্ত একটি মিশ্রণ বৃদ্ধের মুখের সামনে ধরলো। খুব ধীরে প্রবীণ নড়ে উঠলেন, চোখ খুললেন এবং মৃদু হাসলেন।

প্রাগৈতিহাসিক ওষুধপত্র

দৃশ্যটি আসলে পুরোপুরিই কল্পিত। কিন্তু এমনই কিছু একটা হয়তো ঘটেছিল এল সিডারন নামের উত্তর পশ্চিম স্পেনের প্রসিদ্ধ একটি প্রত্নতাত্ত্বিক অঞ্চলে। এখানে পাওয়া গেছে হাড় ও দাঁতের শত শত ফসিল বা জীবাশ্ম যা আসলে নিয়ান্ডারথাল(Homo neanderthalensis)প্রজাতির। এরাআমাদের সহোদর প্রজাতি। এই প্রজাতিটি ৩০ হাজার থেকে ২৫ হাজার বছর পূর্বেই বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছে। ২০১২ সালে বিজ্ঞানীরা নিয়ান্ডারথাল প্রজাতির ৫টি দাঁত বিশ্লেষণ করেন। এক্ষেত্রে তারা গ্যাস ক্রোমোটোগ্রাফি নামের

খুব উন্নত একটি প্রযুক্তি ব্যবহার করেন।প্রত্যেকটি দাঁতের ক্যালকুলাস নামক শক্ত প্লাক স্তরে আটকে থাকা অবস্থায় পাওয়া গেছে ক্ষুদ্র অণুজীব এবং কিছু উদ্ভিদের জীবাশ্ম।

ধারণা করা হয়, দাঁতের মালিক উদ্ভিদগুলো কোনো কারণে খেয়েছিলেন ফলে সেগুলো প্লাক স্তরে আটকে গিয়েছিল। এর মধ্যে একজনের মুখে তিক্তস্বাদযুক্ত কিছু গুল্ম পাওয়া গেছে।যেমন ইয়েরো নামক উগ্রগন্ধের ফুল এবং ক্যারোমিল। এসব উদ্ভিদের আসলে কোনো পুষ্টিগুণ নেই। তবে কেন এসবখেয়েছিল? একটি সম্ভাব্য কারণ হতে পারে উদ্ভিদগুলোর ওষুধিগুণ ছিল। ইয়েরো উদ্ভিদ যুগ যুগ ধরে শক্তিবর্ধক হিসেবে আর ক্যারোমিল উত্তেজনা ও প্রদাহ নিরোধক হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে।

এল সিডারনে পাওয়া এই প্রমাণ আদিকালের রোগবালাইয়ের প্রতিষেধক, রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা ইত্যাদি সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পেতে সাহায্য করে। প্রাগৈতিহাসিক যুগ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানার্জন নির্ভর করে মূলত সংরক্ষিত মৃতদেহ, হস্তনির্মিত বস্তু(যেমন যন্ত্রপাতি, অলংকার) কিংবা প্রাকৃতিক জিনিসপত্র(যেমন উদ্ভিদের বীজ,প্রাণীর জীবাশ্ম) ইত্যাদির উপর। এছাড়া গুহাচিত্র আর প্রস্তরশিল্প থেকেও অনেক কিছু ধারণা করা যায়। প্রাগৈতিহাসিক চিত্রগুলোতে মানবদেহের গঠনগত চিত্র দেখা যায়। এসব চিত্রেহৃৎপিণ্ডও রয়েছে।

আধুনিক নৃবিদ্যা প্রাগৈতিহাসিক সময়ে ব্যবহৃত ওষুধের দিকে অন্তর্দৃষ্টি দিয়েছে। বিশেষ করে আমেরিকা, আফ্রিকা, এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া অঞ্চলর ইতিহাসে। এ অঞ্চলগুলোর ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়,রোগশোক সম্বন্ধে মানুষের মধ্যে ধর্মীয় ও আধ্যাত্মিকতা মেশানো একটি মিশ্র অনুভূতি ছিল। তারা মনে করতো কোনো শয়তান বা অপদেবতার অভিশাপে কিংবা তারা যেসকল পাপ করেছে তার শাস্তি হিসেবে অসুখ বিসুখগুলো হয়ে থাকে। আর এসবের প্রতিকারের জন্য তারা রহস্যময় ও অতিপ্রাকৃত কিছু পদ্ধতির আশ্রয় নিতো।যেমন আত্মার উদ্দেশ্যে অর্ঘ্য নিবেদন, ঈশ্বরের জন্য আত্মত্যাগ, অভিশাপ গুলো তুলে নেবার জন্য বিভিন্ন অজুহাত স্থাপন ইত্যাদি। পাশাপাশি তারা বিভিন্ন ধরনের মলম বা প্রলেপ জাতীয় জিনিসও ব্যবহার করতো যা তৈরি হতো উদ্ভিদ থেকে বা প্রাণীর বিভিন্ন অংশ যেমন রক্ত,হাড়ের গুঁড়া ইত্যাদি থেকে।

বিভিন্ন এলাকায় ব্যবহৃত ওষুধ বিভিন্ন রকম হতো, কেননা তখন যোগাযোগ ব্যবস্থা তেমন উন্নত ছিল না। ফলে নিজ এলাকায় যা পাওয়া যেত তাই কাজে লাগানো হতো। নৃবিজ্ঞানীগণধারণা করেন, প্রতি এলাকায় একজন করে ওঝা থাকতো যে এসব নিরাময় পদ্ধতি সম্পর্কে ভাল ধারণা রাখতো। তাকে বিজ্ঞ ব্যক্তি, ধর্মযাজক, উপদেষ্টা এমনকি কখনো কখনো শাসকও মানা হতো। বিশ্বাস করা হতো যে, এই বিশেষ ব্যক্তিটির ঈশ্বর কিংবা আত্মার সাথে যোগাযোগ করার এক বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে এবং তিনি প্রাকৃতিক ওষুধ তৈরিতে কিংবা মালিশ করার মতো বিষয়গুলোতে সিদ্ধহস্ত।

প্রাগৈতিহাসিক চিকিৎসা নিয়ে গবেষণার পর তাদের কিছু নিরাময় পদ্ধতি সম্বন্ধে জানা যায়। যেমন হাড় ভেঙে গেলে সেটিকে ঠিক করার জন্য স্বাভাবিক অবস্থায় এনে কাদা মাটি দিয়ে প্লাস্টার করে শুকাতে দেয়া হতো।বর্তমানেযেমনটা করা হয় সেটিরই তৎকালীন ভার্সন আরকি। সাথে বেঁধে দেয়া হতো

বন্ধফলক যেটি তৈরি হতো কাঠ, হাড় কিংবা শিং দিয়ে। ক্ষত স্থানে লাগানো হতো গাছের পাতায় তৈরি উপকারী প্রলেপ আর ব্যান্ডেজ হিসেবে ব্যবহার করা হতো প্রাণীর চামড়া।

পেটের পীড়া থেকে মুক্তি মিলতো অর্কিডের মূলের রস পানে। উইলো গাছের ছাল হচ্ছে অ্যাসিটাইল-স্যালিসাইলিক এসিড, সোজা কথায় অ্যাসপিরিনের উৎস। এটি চিবিয়ে খেলে ব্যথা উপশম হতো এবং ফুলে উঠা কমে যেত। শরীরের কোনো স্থান পুড়ে গেলে বিভিন্ন গাছের জাদুকরী রস লাগানো হতো। দূষিত খাদ্য থেকে রক্ষা পেতে কিংবা খাবারে প্রয়োজনীয় খনিজ সরবরাহের জন্য খাওয়া হতো বিশেষ ধরনের কাদামাটি, যা geophagy বা মৃত্তিকাভক্ষক নামেপরিচিত।

দন্ত চিকিৎসাও পিছিয়ে ছিল না। মধ্য পশ্চিম পাকিস্তানের সিবির কাছে মেহেরগড় নামক প্রত্নতাত্ত্বিক অঞ্চলে পাওয়া হাজারো জিনিসের মধ্যে এগারোটি ছিল মোলার দাঁত বা পেষণ দন্ত। এগুলো সম্ভবত নয়জন ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তির দাঁত ছিল। মজার ব্যপার হলো, চকচকে ধারালো সরু প্রান্ত যুক্ত কোনো একটি যন্ত্র দিয়ে দাঁতগুলো ছিদ্র করা হয়েছিল। গবেষকরা যন্ত্রটি পুনরায় তৈরি করার চেষ্টা করেছেন। সম্ভবত যন্ত্রটি দিয়ে এক মিনিটের কম সময়ে দাঁতে ছিদ্র করা যেত। দাঁতের ও ছিদ্রের অবস্থা দেখে ধারণা করা হয় ছিদ্র করার সময় দাঁতের মালিক জীবিতই ছিলেন।

তুরপুন দিয়ে ছিদ্র করার এ পদ্ধতিটি মাথার খুলি ছিদ্র করে মস্তিস্কের আবরণ মেনিনজেস বের করার ক্ষেত্রেও কাজে লাগানো হতো। পরে এ কাজটি করা হতো পাথরের ভাঙা ধারালো প্রান্ত দিয়ে হাড় বের করে আনার ক্ষেত্রে। এক্ষেত্রে হাড় টুকরো টুকরো করে অথবা মধ্যের স্থান থেকে উপড়িয়ে বের করে আনা হতো। আরো আধুনিক পদ্ধতি ছিল ঘূর্ণীয়মান করাতের ব্যবহার। ছিদ্র করার এ প্রক্রিয়ার মূল বিশ্বাস ছিল রোগীর শরীর থেক অশুভ শক্তিকে বের করে দেয়া। ছিদ্র করে বের করে আনা ভাঙা হাড়কেকবচ হিসেবে রাখা হতো যাতে সেই অশুভ জিনিসটি আবার ফিরে না আসে।

বর্তমানে অনুমান করা হয়, যেসব রোগীর ওপর এ পদ্ধতিগুলো প্রয়োগ করা হয়েছে তারা সম্ভত অসহ্য মাইগ্রেনের ব্যথায় ভুগছিলেন অথবা তাদের অনিচ্ছাপূর্বক ধরে আনা হয়েছিল। এছাড়া আরো কারণ হতে পারে গভীর হতাশা, বাইপোলার ডিজঅর্ডার কিংবা মস্তিষ্কের অভ্যন্তরের চাপ বেড়ে যাওয়ার কারণে অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ। এরকম রক্তক্ষরণে মৃত্যুও হতে পারে। মস্তিষ্কের এসকল সমস্যার কারণে খুলি ছিদ্রকরণ পদ্ধতি ব্যবহৃত হতো। এটি সম্ভবত রক্তক্ষরণের কারণে জমে থাকা রক্ত বের করে চাপ কমাতে সাহায্য করতো।

১৯৯১ সালে অস্ট্রেলিয়া এবং ইতালির মধ্যকার সীমান্তের কাছাকাছি আলপসনামক স্থানে প্রাকৃতিক উপায়ে মমি করে সংরক্ষণ করা একটি মৃতদেহের সন্ধান পাওয়া যায়। এরনাম দেয়া হয় Otzi, the iceman। এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশিবার গবেষণা করা মানুষের মৃতদেহ। Otzi-র বয়স ছিল ৪৫ বছর, মারা গিয়েছিল এখন হতে প্রায় ৫৩০০ বছর আগে। তার পরনে ছিল ঘাস দিয়ে বোনা আবরণ। তার গায়ে ছিল সত্যিকারের চামড়ার তৈরি গাত্রাবরণ এবং জুতা। সাথে রাখা ছিল ছুরি, কুঠার, তীর, ধনুক, গাছের ছাল এবং তৎকালীন চিকিৎসার জন্য যা যা লাগতো তার সব।

অটজির দেহের কিছু স্থান দখল করেছিল বুড়ো আঙ্গুলের সমান আকারের ২টি ফাঙাসের পিণ্ডবা মোল্ড। ফাঙ্গাস প্রজাতিটির নামPiptoporus betulinus। প্রত্যেকটি পিণ্ডে একটি করে ছিদ্র ছিল যাতে তারা সুরক্ষিতভাবে চামড়ার বস্ত্রের উপর অবস্থান করতে পারে। চিকিৎসাশাস্ত্রে এইফাঙ্গাসটির বেশ কিছু ব্যবহার আছে। এটি রেচক(কোষ্ঠ দূর করে এমন) হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে। তবে সেসাথে এটি ডায়রিয়া সৃষ্টির কারণও হতে পারে। এর কিছু অ্যান্টিবায়োটিক গুণও আছে, অন্ত্রের কৃমি ধ্বংসের জন্য এটি উপকারী। এরকমটা হয়েছিল কারণঅটজির দেহের বিস্তৃত গবেষণার পর তার বৃহদন্ত্রে কৃমির ডিমের সন্ধান পাওয়া যায়।

চিত্রঃ অটজির গায়ের ট্যাটু।

স্বাভাবিকভাবেই এই জায়গাগুলোতে তীব্র ব্যথা অনুভব করত সে। ট্যাটুগুলো আঁকা হয়েছিল ব্যথার এই স্থানগুলোতেই। তাহলে দাঁড়ায়, ট্যাটুগুলো ব্যথা হতে মুক্তির এক ধরনের সাংকেতিক চিকিৎসা। আরেকটি ব্যাপার ধারণা করা হয়, সমান্তরাল রেখাগুলি আকুপাংচার থেরাপির কারণে সৃষ্ট। চৈনিক চিকিৎসাবিদ্যায় এধরনের রেখাকে বলা হয় channels of meridians। অটজির সম্পূর্ণ রহস্য এখনো কিছুটা অজানা। কিন্তু প্রাগৈতিহাসিক চিকিৎসা যে বর্তমান অনেক পদ্ধতির চেয়ে অনেক বেশি বাস্তবধর্মী ছিলOtzi তারই একটি জ্বলন্ত প্রমাণ।অটজির আরো চমকপ্রদ জিনিস হচ্ছে তার গায়ের ট্যাটু। সারা শরীর জুড়ে তার ৫০টিরও বেশি ট্যাটু রয়েছে। বাঁ হাতের কবজি, বাঁ পায়ের গুলি, ডান হাঁটু, উভয় গোড়ালি, ডান পায়ের পাতাএবং মেরুদণ্ডের নিচের দিকে উভয় পাশে ট্যাটুগুলো এমনভাবে করা হয়েছে যেন একগুচ্ছ সমান্তরাল রেখা। চামড়ার উপরে কিছু দিয়ে কাটার পর তাতে চারকোল ঘষে দেয়া হয়েছে। এত জায়গাজুড়ে ট্যাটুগুলো আঁকানোর পরেও সেগুলো আসলে গায়ের আবরণ এবং জুতা দিয়ে ঢাকা থাকে। সুতরাং মনে হয় না যে সেগুলো শুধু সৌন্দর্যবর্ধনের জন্যই আঁকা হয়েছে। এক্সরে এবং সিটি স্ক্যান করে দেখা গেছে অটজির মেরুদণ্ড, হাঁটু এবং গোড়ালির হাড়গুলোতে ক্ষয় হয়ে যাবার প্রবণতা দেখা গিয়েছিল।