পর্যায় সারণীর চারটি নতুন মৌলের স্বীকৃতি

পর্যায় সারণীতে নতুন ৪ টি মৌল যুক্ত হয়েছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সংস্থা IUPAC যা পর্যায় সারণী সংক্রান্ত সবরকমের সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে সেই ৪ টি মৌলের আবিষ্কারের সত্যতা যাচাই করার পরে এ সিদ্ধান্ত নিলেন। এর মাধ্যমে ২০১১ সালের পরে এই প্রথম পর্যায় সারণীতে মৌল অন্তর্ভুক্তির ঘটনা ঘটল। এর মাধ্যমে সারণীর ৭ম সারিটি সম্পূর্ণ হলো।

সকল মানবসৃষ্ট মৌলকে আপাতত পর্যায় সারণীতে স্থানদখলকারী সংখ্যার ভিত্তিতে নামকরণ করা হবে। ১১৩ নং মৌল আবিষ্কারের কৃতিত্ব দেয়া জাপানের হচ্ছে RIKEN ইনস্টিটিউটকে। মৌল ১১৫,১১৭, ১১৮ নম্বরের আবিষ্কারের কৃতিত্ব দেয়া হচ্ছে জয়েন্ট ইনস্টিটিউট ফর নিউক্লিয়ার রিসার্চ ইন ডুবনা, রাশিয়া এবং ক্যালিফোর্নিয়ার লরেন্স রিভারমোর ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির একদল বিজ্ঞানীকে।

অত্যধিক ভারী মৌল আবিষ্কার কষ্টসাধ্য, কারণ এগুলো খুবই ক্ষণস্থায়ী। কিন্তু এই ভারী মৌল আবিষ্কার করতে গিয়ে দেখা গেছে এগুলো আগের মৌলগুলো থেকে একটু বেশিই স্থায়ী হয়েছে।

রাইকেন ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানী কসুকে মরিতা ১১৩ তম মৌলের আবিষ্কারের সময় জানিয়েছিলেন,“তার দলটি এখন পর্যায় সারণির অজানা এলাকা ১১৯ তম মৌল ও তার চেয়েও ভারী মৌলের আবিষ্কারের জন্য চেষ্টা করবেন।” (বিবিসি)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *