প্রজেরিয়াঃ শৈশবেই বার্ধক্য

পাশের ছবিতে যাকে দেখতে পাচ্ছেন তার নাম অ্যাডালিয়া রোজ। বলুন তো কত হতে পারে তার বয়স? ৮০-৯০ বছর? একটু কম বললাম কি? ১০০ বছর? বিশ্বাস করবেন কিনা জানি না, মেয়েটির বয়স মাত্র ৯ বছর! তার জন্ম ২০০৬ সালের ১০ই ডিসেম্বর। আসলে অ্যাডালিয়া রোজ প্রজেরিয়া (progeria) নামক এক ধরনের বিরল রোগে আক্রান্ত।

চিত্রঃ অ্যাডালিয়া রোজ

প্রজেরিয়া মূলত এক ধরনের বিরল জেনেটিক ডিজঅর্ডার। প্রজেরিয়া শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ ‘Progeras’ থেকে, যার অর্থ অপ্রাপ্তবয়স্ক বৃদ্ধ (Pro অর্থ পূর্বে বা অপ্রাপ্তবয়স্ক এবং Geras অর্থ বার্ধক্য)। ১৮৮৬ সালে সর্বপ্রথম ড. জোনাথন হাচিনসন এবং পরবর্তীতে ১৮৯৭ সালে ড. হেস্টিংস গিলফোর্ড এ রোগ সম্পর্কে ধারণা প্রদান করেন। তাই তাদের নাম অনুসারে একে হাচিনসন-গিলফোর্ড প্রজেরিয়া সিনড্রমও বলা হয়। এলএমএনএ (LMNA) নামক এক ধরনের জিন শরীরে ল্যামিন-এ (Lamin A) নামক প্রোটিন তৈরি করে যা কোষের ভেতরের নিউক্লিয়াসকে ধরে রাখে। এই LMNA জিনের মিউটেশনের কারণে যে পরিবর্তিত ল্যামিন-এ প্রোটিন তৈরি হয় তা কোষের নিউক্লিয়াসকে অস্থিতিশীল করে ফেলে। ফলশ্রুতিতে দেহের কোষ খুব দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং বয়োবৃদ্ধির প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হয়। জিনের মিউটেশনের কারণে প্রজেরিয়া হয়ে থাকলেও এটি মূলত বংশাণুক্রমিক বা উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া কোনো রোগ নয়। অর্থাৎ সন্তান রোগটি তার মা বাবার কাছ থেকে পায় না এবং তারা এ রোগের জিনও বহন করেন না। এ রোগে আক্রান্তরা গড়ে সাধারণত ১৩ বছর বেঁচে থাকে এবং প্রায় ৯০% ক্ষেত্রে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের মতো সমস্যায় প্রজেরিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে।

শিশুর জন্মের প্রথম কয়েক মাসের মধ্যে এ রোগের প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশ পায়। ১৮ থেকে ২৪ মাস বয়সে আরো লক্ষণ প্রকাশ পেতে শুরু করে। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে এ রোগের লক্ষণ প্রকট হয়ে ধরা দেয়। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরের বৃদ্ধি চলতে থাকে অত্যন্ত দ্রুতগতিতে, মাথা শরীরের তুলনায় অনেক বেশি বড় হয়, বয়স বাড়ার সাথে সাথে চামড়ায় ভাঁজ পড়তে শুরু করে। এক কথায়, বেড়ে ওঠার আগেই বুড়িয়ে যেতে থাকেন তারা। জিনগত মিউটেশনের কারণে প্রজেরিয়া সৃষ্টি হওয়ায় এ রোগের এখন পর্যন্ত সম্পূর্ণ কার্যকরী কোনো চিকিৎসা নেই। তবে আশার কথা, এটি অত্যন্ত বিরল রোগ। প্রতি ৮০ লক্ষ শিশুর মধ্যে ১ জন শিশুর এ রোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রজেরিয়া নিয়ে বলিউডে একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছিল। অমিতাভ বচ্চন, অভিষেক বচ্চন, বিদ্যা বালান প্রমুখ অভিনীত চলচ্চিত্রটির নাম হল ‘পা’ (Paa)। ২০০৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এ ছবিতে অমিতাভ বচ্চনকে অভিষেক বচ্চনের ছেলের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যায়। যদিও বাস্তব জীবনে অমিতাভ বচ্চন হলেন অভিষেক বচ্চনের বাবা।

অতিসম্প্রতি মৃত্যুবরণ করেন প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত ভারতের মুম্বাইয়ের নিহাল বিটলা। মাত্র ১৫ বছর বয়সে মারা যান তিনি। নিহাল বিটলা প্রজেরিয়া সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালাতেন। প্রজেরিয়া সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য তিনি #হ্যাটসঅনফরপ্রজেরিয়া নামে প্রচারণা চালিয়েছিলেন।

তথ্যসূত্র

https://en.wikipedia.org/wiki/Progeria

https://en.wikipedia.org/wiki/Paa_(film)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *