ফ্রিৎস হেবার: দানব নাকি দেবদূত?

১৯১৫ এর বসন্ত প্রায় শেষের পথে। বেলজিয়ামের ইপ্রা তেপান্তরে পঁচতে শুরু করেছে হাজারও যুবকের মৃতদেহ। সুরক্ষিত পরিখার নিচে গাদাগাদি করে শুয়ে রয়েছে কাঁদা লেপ্টে থাকা একদল সৈন্য। আর তাদের ঠিক নিচেই গোর দেওয়া লাশগুলোতে ভাগ বসাচ্ছে মাছি আর ইঁদুর। ইপ্রার এইপাশে বুলেটের ছোঁড়াছুড়ি থামছে না বললেই চলে, সাথে মর্টারের কান ফাটানো শব্দও ঢাকা পড়েছে আহতদের আর্তনাদে।

ইপ্রার জার্মান নাৎসিদের দখলে থাকা প্রান্তটা একটু অন্যরকম। সেদিকে চোখ ফেরালেই দেখা যাবে ছোটখাট টাক মাথার এক ভদ্রলোককে, নাম তার ফ্রিৎস হেবার। পিন্স-নেজ চশমার ফাঁক দিয়ে দেশের শত্রুদের দিকে চোখ বুলাচ্ছেন এই জার্মান-ইহুদী রসায়নবিদ।

হেবারের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা ৬ হাজার ট্যাংক দাঁড়িয়ে আছে তার হাত নাড়ানোর অপেক্ষায়। সন্ধ্যার দিকে বাতাসের গতিপথটা পরিবর্তন হতেই তার বিশাল গোঁফের নিচে জ্বলতে থাকা ভার্জিনিয়া সিগারেটটা ছুঁড়ে ফেলে দিলেন, হাত নেড়ে সংকেত দিলেন। মুখ থেকে বেরিয়ে এলো ‘God Punish England’-এর মতো স্বগতোক্তি।

হঠাৎ করেই ইপ্রার তেপান্তর ভেঙে পড়লো বিস্ফোরণের শব্দে। সিলিন্ডারের ভালভগুলো উন্মুক্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়লো ১৬৮ টন ক্লোরিন গ্যাস। সবুজাভ হলুদ রঙের কুয়াশার মতো ক্লোরিন গ্যাসের স্তর যুদ্ধক্ষেত্রে ছড়িয়ে থাকা মৃতদেহের উপর দিয়ে চলে গেলো মিত্রবাহিনীর সৈন্যের দিকে।

গাছের ডাল থেকে পাতা পড়ে যেতে থাকলো, সবুজ ঘাসের উপর ধাতবরঙা আস্তরণ পড়লো, আকাশ থেকে খসে পড়তে শুরু করলো উড়তে থাকা পাখি। এটুকু দেখেই যা বোঝার বুঝে নেয়া উচিৎ ছিল মিত্রবাহিনীর সৈন্যদের। কিন্তু না, তারা নিজেদের জায়গাতেই বসে থাকল, এরকম জিনিস আগে কখনো দেখা হয়নি তাদের।

কিছুক্ষণের মধ্যেই ট্রেঞ্চে শুয়ে থাকা সৈন্যদের ফুসফুসে আক্রমণ করলো ক্লোরিন গ্যাস। দাঁড়িয়ে থাকা সৈন্যরা হাঁটু গেড়ে বসে পড়লো, যারা বসে ছিল তারা মাটিতেই শুয়ে পড়লো। অ্যালভিওলাই আর রক্তনালীগুলো ফেটে যাওয়ার উপক্রম হলো, মুখ থেকে গলগল করে রক্ত বের হওয়ার আগে হলুদ মিউকাসে ভেসে গেলো তাদের চেহারা।

তাদের ভয়াবহ অভিজ্ঞতা বলার আর সময় হলো না, মাটিতেই ডুবে মরতে হলো কয়েক হাজার সৈন্যকে। পড়ে যেতে থাকা সহচরদের দেখে ইপ্রা থেকে পিছু হটলো মিত্রবাহিনীর সৈন্যরা, নিজেদের জীবনের সেরা দৌড়টা দিয়ে পালিয়ে বাঁচলো বিষাক্ত ক্লোরিন গ্যাস থেকে।

এটাই ছিল ফ্রিৎস হেবারের পরিকল্পনা। তিনি নিজেই স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন এই প্রাণঘাতী পরিকল্পনায়। যুদ্ধক্ষেত্র পরিচালনা করা জার্মান জেনারেলদের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই জার্মানির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদেরকে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের দিকে উৎসাহী করে তুলেছিলেন এই রসায়নবিদ।

এর তিন বছরের মাথায় নোবেলের সোনালী পদক গলায় ঝুলিয়ে হাসিমুখে ছবি তুললেন হেবার এবং সেটা অবশ্যই ভালো কারণে। এমনকি আপনি নিজেও হয়তো নিজের জীবনের জন্য এই বিজ্ঞানীর কাছে ঋণী!

হেবার তার ইতিবাচক বৈপ্লবিক আবিষ্কার করার আগ মুহূর্ত পর্যন্তও বিজ্ঞানীদের কাছে সবচেয়ে বড় মাথাব্যথার কারণ হয়ে ছিল জনসংখ্যার আধিক্য। পৃথিবীর দেড় বিলিয়ন মানুষের পেটকে শান্ত রাখা মুখের কথা নয়, যেখানে প্রায় প্রতিদিনই কয়েক হাজার মানুষ দুর্ভিক্ষের আক্রমণে মাটিতে ঢলে পড়ছে। উনিশ শতাব্দীর শেষ দিকে জার্মানির মাঠ তখন ৩ কোটি মানুষের খাবারে পরিপূর্ণ, কিন্তু ফসলের ফলন ভালো না হলে না খেয়ে থাকতে হবে আরো ২ কোটি মানুষকে।

এ সমস্যার সমাধান তাত্ত্বিকভাবে খুবই সহজ। ১৮৪০ এর দশকেই ফন লিবিগ বলেছিলেন উদ্ভিদ কোষের বৃদ্ধির জন্য নাইট্রোজেন অপরিহার্য। ফসল কতোটুকু ফলবে তা-ও নির্ভর করে নাইট্রোজেন সরবরাহের মাত্রার উপর। ৪ হাজার ট্রিলিয়ন টন নাইট্রোজেন গ্যাস ঘোরাফেরা করছে আমাদের বায়ুমণ্ডলে, দখল করে রেখেছে প্রায় ৮০% এলাকা। কিন্তু কে বাতাস থেকে এই নাইট্রোজেনকে টেনে বের করে মাটিতে পুঁতে দেবে?

বাতাস থেকে নাইট্রোজেন আলাদা করার সবচেয়ে বড় বাধাটা হলো এর শক্তিশালী ত্রিযোজী বন্ধন। বায়ুতে উড়তে থাকা নাইট্রোজেন অণুগুলো পরস্পরের সাথে এত দৃঢ়ভাবে সংযুক্ত যে এগুলোকে আলাদা করার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তি উৎপাদন করাও তৎকালীন সময়ে অকল্পনীয় ব্যাপার ছিল।

ঠিক এই কারণেই দেশগুলোকে খুঁজতে হয়েছিল নাইট্রোজেনের বিকল্প উপায়– সমুদ্রশৈবাল আর পাখির মল থেকে তৈরি সার। কিন্তু এগুলোও এতটা দুর্লভ ছিল যে, পাখির মল ভর্তি দ্বীপ দখলের জন্য যুদ্ধে নামতে হয়েছিল স্পেন-চিলি-পেরুকে। শেষমেশ চিলি যখন যুদ্ধে জয়লাভ করে দ্বীপ দখলে নিলো, তাদের রাজস্ব আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ৯০০%-এরও বেশি!

বিংশ শতাব্দীর শুরুর দিক থেকেই হেবার এই নাইট্রোজেনের বন্ধন ভাঙার জন্য উঠেপড়ে লাগলেন। পরীক্ষার জন্য তৈরি করলেন বিশাল এক লোহার ট্যাংক, তারমধ্যে বাতাস আর হাইড্রোজেন ঢুকিয়ে দিলেন। দিয়ে প্রচণ্ড চাপ, সাথে অস্বাভাবিক তাপমাত্রা প্রয়োগ করতে লাগলেন।

কিছুক্ষণের মধ্যেই নাইট্রোজেনের বন্ধন ভেঙে তিনটি হাইড্রোজেনের সাথে যুক্ত হয়ে তৈরি হলো অ্যামোনিয়া, ট্যাংকের নিচ থেকে বের হয়ে এলো তরল সার। অবশেষে উদ্ভাবন হলো বাতাস থেকে নাইট্রোজেন বের করে নিয়ে আসার উপায়, আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর পর ১৯০৯ সালে পৃথিবীবাসীর সামনে হেবার প্রকাশ করলেন তার আবিষ্কার।

প্রতিবছর ১০০ মিলিয়ন টনেরও বেশি সার উৎপাদন করা হয় এই প্রক্রিয়ায়। আপনি সহ ৭ বিলিয়নেরও বেশি মানুষের দেহের অর্ধেক নাইট্রোজেনই আসে এই হেবার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। বিংশ শতাব্দীর সেরা আবিষ্কার হিসেবে মনে করা হয় এই হেবার প্রক্রিয়াকে যেটি থামিয়ে দিয়েছে যুদ্ধ, পেটের ক্ষুধা নিবারণ করে মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছে এবং আধুনিক সভ্যতার দিকে আরও একধাপ এগিয়ে নিয়েছে।

জনসংখ্যার সাথে তাল মিলিয়ে জার্মানির অর্থনীতির চাকাও ঘুরতে থাকলো দ্রুতগতিতে। উচ্চাকাঙ্ক্ষী সাম্রাজ্যবাদী জার্মানি তাদের সীমানা বাড়াতে হাত বাড়ালো বেলজিয়ামে, সেখান থেকে ফ্রান্স। শুরু হয়ে গেলো প্রথম বিশ্বযুদ্ধ। জার্মানরা ভেবেছিল খুব অল্প সময়েই যুদ্ধ শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু বিধি বাম, মিত্রবাহিনীর নৌবহর সাগর থেকে আসা অস্ত্র-বারুদের কাঁচামালের রসদ আটকে দিল।

বুকে একসাগর দেশপ্রেম নিয়ে বেড়ে ওঠা ফ্রিৎস হেবার সেনাবাহিনীর কাছে চিঠি পাঠালেন। রসায়নের তত্ত্বানুযায়ী নাইট্রোজেনকে ভাঙতে যতোটুকু শক্তি পাওয়া গিয়েছিল, জুড়তে পারলে ঠিক ততোটুকুই শক্তি ফিরে পাওয়া যাবে। যে বিক্রিয়া দিয়ে তিনি হাজারও জীবন রক্ষা করেছেন, তার উল্টোটা করলেই ঝরে পড়বে জার্মানির বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরা হাজারও মিত্রবাহিনীর সৈন্যের লাশ। তার এই পরিকল্পনার সদ্ব্যবহার করতেই সারা জার্মানিজুড়ে বসানো হলো বিস্ফোরক তৈরির কারখানা, বিশ্বযুদ্ধ স্থায়ী হলো আরো ৩ বছর।

কিন্তু এত পরিকল্পনার পরেও খুব একটা সুবিধা হয়নি জার্মানির। মিত্রবাহিনীর কাছেও রয়েছে একই প্রযুক্তি, বরং তাদের সৈন্যসংখ্যা ঢের বেশি। হেবার এবার তার শেষ পরিকল্পনাটা শোনালেন। ক্লোরিন গ্যাসের সাথে মিশিয়ে দেওয়া হবে অ্যামোনিয়া, তৈরি হবে শ্বাসরোধ করে ফেলা গ্যাস, মুহূর্তেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে হাজারও সৈন্য। এভাবে মেরে ফেলা নিয়ে হেবারের কোনো আফসোস ছিল না। এই জার্মান ইহুদীর ভাষ্যমতে, যুদ্ধহীন অবস্থায় একজন বিজ্ঞানী পুরো বিশ্বের জন্য, কিন্তু যুদ্ধের সময় তার পুরোটাই দেশের জন্য।

ইপ্রার তেপান্তরে পরীক্ষামূলকভাবে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের মাধ্যমে নতুনভাবে শুরু হলো যুদ্ধ। হেবারকে পদোন্নতি দিয়ে জার্মান বাহিনীর ক্যাপ্টেন বানানো হলো। এদিকে হেগ চুক্তি ভঙ্গের প্রতিশোধ নিতে মিত্রবাহিনীও রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার শুরু করলো জার্মানদের উপর। অবশেষে আত্মসমর্পন করলো অক্ষবাহিনী, উভয় পক্ষেরই এক লক্ষেরও বেশি মানুষ মারা গিয়েছে গ্যাসের আক্রমণে, লক্ষ লক্ষ মানুষ আহত হয়েছে হেবারের পরিকল্পনায় গড়ে ওঠা বিষের আঘাতে।

বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর অন্যান্য জার্মানদের সাথে হেবারও মাথা হেট করে ফিরে আসলো নিজ দেশে। জার্মানি তখন বিধ্বস্ত, মুদ্রাস্ফীতির কারণে মানুষের বেঁচে থাকাও কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে। দেশের এই দুঃসময়ে হেবার সাগরের পানি ছেঁকে সোনা বের করার উপায় খুঁজতে থাকলেন। কিন্তু, বাতাস থেকে নাইট্রোজেন বের করা আর সাগরের পানি থেকে সোনা বের করা তো এক জিনিস নয়।

হেবারের অবস্থা আরও খারাপ হয়ে পড়লো যখন হিটলারের নাৎসি বাহিনী জার্মানির কর্তৃত্ব হাতে পেলো। তার মতো ইহুদীদের বিরুদ্ধে তখন উঠেপড়ে লেগেছে নাৎসিরা। তার হাতে প্রতিষ্ঠিত হওয়া উইলহেম কাইসার বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট তখন ইহুদী বিজ্ঞানীদের আঁতুড়ঘর। হেবারসহ তার ইহুদী সহকর্মীরা উৎখাত হলো জার্মানি থেকে। হেবার এবার পালিয়ে বেড়ালেন ইউরোপের এমাথা থেকে ওমাথা। ইংল্যান্ডের ক্যামব্রিজে অধ্যাপনা করতে গিয়ে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে নাম লেখালেন, ফ্রান্সেও তাই!

এভাবে পালিয়ে বেড়ানোর ফলে শরীর খারাপ হয়ে পড়লো। সুইজারল্যান্ডে যাওয়ার পথে তার হৃৎপিণ্ড প্রায় থেমে গিয়েছিল। তারপর সেখানে পৌঁছানোর পর হোটেল রুমেই দ্বিতীয়বার হার্ট অ্যাটাক করে পরলোকে পাড়ি জমালেন ১৯১৮ সালের এই নোবেল বিজয়ী। বিলাসিতায় ডুবে থাকা এই বিজ্ঞানী শেষ বয়সে মারা গেলেন একাকী এবং দেউলিয়া অবস্থায়, যে অশুভ জিনিসকে তিনি গড়ে তুলেছিলেন তা নিয়ে অনুতপ্ত হয়ে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার অনেক আগেই ইহলীলা সাঙ্গ করেছিলেন হেবার, কিন্তু তার আবিষ্কার করা অনেক কিছু তখনও ব্যবহার হচ্ছিল, যার মধ্যে একটি হলো জিকলন নামের হাইড্রোজেন-সায়ানাইড যৌগ। নাৎসি বিজ্ঞানীরা হেবারের এই আবিষ্কারকে সামান্য পরিবর্তন করে এর গন্ধটুকু বের করে নিলেন। আর এই গন্ধহীন গ্যাস বুকে টেনে নিয়ে অসউইটজ ক্যাম্পেই প্রাণ হারালেন হেবারের পরিবার-বন্ধুসহ কয়েক লক্ষ ইহুদী।

ফ্রিৎস হেবারকে নিয়ে ইতিহাসবিদরা এখনো বিতর্ক চালিয়ে যাচ্ছেন। কোটি কোটি লোকের অস্তিত্বই থাকতো না যদি না হেবার থাকতেন। আবার তিনি না থাকলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধও অনেক আগেই শেষ হয়ে যেতে পারতো, কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পেও প্রাণ দিতে হতো না লক্ষ লক্ষ মানুষকে। একইসাথে সৃষ্টিশীল এবং ধ্বংসাত্মক, দয়ালু এবং পাষাণহৃদয় এই রসায়নবিদ যেমন নিজের মেধাকে কাজে লাগিয়ে কোটি কোটি মানুষকে পেটভরে খাইয়েছেন, তেমনি প্রতিপক্ষের করুণ আর্তনাদেও উৎফুল্ল হয়ে উঠেছেন।

তার পাপ এবং পুণ্য পরিমাপ করার কোনো সহজ উপায় নেই, হয়তো তা পরিমাপ করার প্রয়োজনও নেই। দিনশেষে তিনি ফ্রিৎস হেবার, বিজ্ঞানের ব্যবহার আর অপব্যবহারের নিখুঁত উদাহরণ।

তথ্যসূত্র

১. https://www.smithsonianmag.com/history/fritz-habers-experiments-in-life-and-death-114161301/

২. https://medium.com/the-mission/the-tragedy-of-fritz-haber-the-monster-who-fed-the-world/
৩. http://www.bbc.com/news/world-13015210

আইনস্টাইনের আয়না এবং স্পেশাল রিলেটিভিটির দুইটি স্বীকার্য

স্যার আলবার্ট আইনস্টাইন। সম্ভবত পৃথিবীর ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী। সবচেয়ে আলোচিত এবং মেধাবীও বলা চলে। বিজ্ঞানী মাইকেলসন আর মর্লি আলোর বেগের আপেক্ষিকতার পরীক্ষা করেছিলেন পরীক্ষাগারের, যন্ত্র পাতির সাহায্য নিয়ে। আর কিশোর আইনস্টাইন সেটা করেছিলেন তার মাথার পরীক্ষাগারে, একটি ছোট্ট থট এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে। আজ আমরা সেই পরীক্ষার কথায় জানবো। তার সাথে সাথে জানবো এই থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে কিভাবে আমরা স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি পেয়ে যাই।

Image result for albert einstein wallpaper

তখন ১৮৯৬ সাল। আইনস্টাইনের বয়স কেবল ষোল। আইনস্টাইন তখনও মাইকেলসন আর মর্লির ইথারের পরীক্ষার বিষয়ে একদমই জানতেন না। ইথারের অস্তিত্ব যে কিছুটা সন্দেহের মুখে পড়ে গেছে তা না জেনেই আইনস্টাইন তার জীবন্ত পরীক্ষাগার, নিজের মাথায় একটি থট এক্সপেরিমেন্ট চালালেন। আইনস্টাইন নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করলেন, “কি ঘটবে যদি আমি এখন আমার দুই হাতে একটি আয়না ধরে আলোর বেগে দৌড়াতে শুরু করি। আমি নিজে কি নিজের প্রতিচ্ছবি সেই আয়নায় দেখতে পাবো?” বলে রাখা ভাল যে, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতায় শুধু আলোর বেগ কেন, আলোর চেয়ে বেশি বেগে যাওয়ার বিষয়েও কোন রকম বিধি নিষেধ ছিল না।

বিজ্ঞানীরা আরো আগে থেকেই জানতেন যে, আলোর বেগ ৩,০০,০০ কি.মি./সেকেন্ড। কিন্তু কার সাপেক্ষে আলোর এই বেগ? এ প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য তারা ইথারের ধারণার অবতারণা করেছিলেন। অর্থাৎ, আইনস্টাইন যখন আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড় দেবেন তখন আলো ইথার মাধ্যমে ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আইনস্টাইনের মুখমন্ডল থেকে আইনস্টাইনের হাতে ধরে রাখা আয়নাটির দিকে যাওয়ার চেষ্টা করবে। আইনস্টাইন নিজেও আলোর বেগে সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন। অর্থাৎ, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা অনুসারে আলো আর আইনস্টাইনের বেগ সমান বলে আলো কখনই আইনস্টাইনের মুখমন্ডল থেকে আয়নায় পৌঁছাতে পারবে না।

এ পর্যন্ত বুঝতে কারো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। এবার আমরা মনে করি দেখি যে, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার প্রথম স্বীকার্যটিতে কি বলা হয়েছিল। এই স্বীকার্য আমাদের বলেছিল যে, “একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি সিস্টেমে পদার্থবিজ্ঞান আসলে একই রকমভাবে কাজ করে এবং একই রকম ফলাফল দেয়”। যার অর্থ আমরা যদি একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি বস্তু বিবেচনা করি তাহলে আমরা কোনভাবেই বলতে পারব না যে কে গতিশীল আছে আর কে স্থির আছে।

চলুন, এখন আবার আইনস্টাইনের থট এক্সপেরিমেন্টে ফিরে যাই। আইনস্টাইনের থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে এই বিষয়টি নিশ্চিত যে, আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড়ালে আসলে আমাদের প্রতিবিম্ব আয়নাতে আমরা দেখতে পারবো না। ফলে নিজেদের মুখ আমরা আয়নায় দেখতে পাবো না। তাহলে কি দাঁড়ালো? একজন যদি আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড় দেয় এবং আয়নায় দেখে নিজের প্রতিবিম্ব সেখানে পরছে না তখনই সে নিশ্চিতভাবে বলতে পারবে যে, সে আসলেই আলোর বেগে গতিশীল আছে। কিন্তু গ্যালিলিওর আপেক্ষিকতার স্বীকার্য আমাদের বলেছিল কোন একটি পরীক্ষা স্থির অবস্থায়ই করা হোক বা, সমবেগে গতিশীল থাকা অবস্থায়ই করা হোক না কেন একই ফলাফল দেবে। কিন্তু এই থট এক্সপেরিমেন্টে এই স্বীকার্যটি তো ভুল প্রমাণ হয়ে গেল!! তাহলে?

Image result for looking in mirror

আইনস্টাইন তার এই থট এক্সপেরিমেন্টে ইথার ধারণাটিকে প্রথমে সত্য বলে ধরে নিয়েছিলেন। অর্থাৎ, আলোর বেগ শুধু ইথারের সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড থাকে। অর্থাৎ, ইথার ধারণা সঠিক হলে গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটি ভুল হয়ে যায়।

যদি গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যকে সত্য হতে হয় তাহলে নিজের প্রতিবিম্ব আয়নায় দেখা যেতে হবে স্বাভাবিকভাবেই। আর সেটা তখনই সম্ভব হবে যখন আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই ধ্রুব বা, একই হবে। তাহলে আইনস্টাইন যদি আলোর বেগেও যান তাহলেও আলো তার সাপেক্ষে আলোর বেগেই চলবে। ফলে আলো স্বাভাবিকভাবেই আয়নায় পৌঁছাবে আর আইনস্টাইন তার মুখমন্ডল দেখতে পাবেন।

বিষয়টা আরেকটু পরিষ্কারভাবে বলা যাক। ধরি, আইনস্টাইন একটি আয়না নিয়ে স্থির দাঁড়িয়ে আছেন। তাহলে তিনি যদি এখন তার ডান হাতটি হালকা নাড়ান তবে খুব কম সময়ের মাঝে সামনের আয়নাতে তিনি তার ডান হাত নাড়ানোটি দেখতে পাবেন। এখন যদি তিনি আলোর কাছাকাছি বেগে আয়নাটি নিয়ে দৌড় দেন তবে গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা অনুসারে তার সাপেক্ষে আলোর বেগ কমে যাবে (যদি কোন গাড়ি ১০ মি./সেকেন্ড বেগে যায় আর আপনি ৫ মি./সেকেন্ড বেগে সেই একই দিকে দৌড়ান তাহলে আপনার কাছে মনে হবে গাড়ির বেগ কমে ৫ মি./সেকেন্ড হয়ে গিয়েছে। একই যুক্তিতে আলোর বেগের কাছাকাছি বেগে গেলে আপনার সাপেক্ষে আলোর বেগ কমে যাওয়ার কথা)। তাহলে ডান হাত নাড়ানোর অনেক পরে তিনি আয়নাতে তার হাত নাড়ানো দেখতে পাবেন। সময়ের এ পার্থক্য দিয়েও যে কেউ বলে ফেলতে পারবেন যে তিনি আসলে স্থির নয় বরং গতিশীল আছেন। অর্থাৎ, আপনি স্থির থাকলে আলোর বেগ আপনার কাছে যত হবে আপনি যদি আলোর কাছাকাছি বেগেও দৌড়ানো শুরু করেন তবেও আলোর বেগ আপনার সাপেক্ষে ৩,০০,০০ কি.মি./সেকেন্ডই থাকতে হবে। তবেই শুধুমাত্র গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটিকে বাঁচানো সম্ভব হবে। আর এটি সত্য হলে আলোর বেগের ওপড় ইথারের আর কোন প্রভাব থাকে না। সুতরাং ইথার ধারণাটিও অপ্রয়োজনীয় হয়ে যায়।

অর্থাৎ, গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্য এবং ইথার ধারণা এ দুটোই একই সাথে সত্য হতে পারেনা। এদের যেকোন একটাকে মিথ্যা হতেই হবে। এর আগেই মাইকেলসন-মর্লির এক্সপেরিমেন্ট থেকে আমরা দেখেছি ইথারের অস্তিত্ব প্রমাণ করা সম্ভব হয় নি। আইনস্টাইনও দেখলেন আলোর বেগকে যদি সব কিছুর সাপেক্ষে সর্বদা একই ধরে নেয়া হয় তাহলে ইথারের আর প্রয়োজন পড়ে না। এভাবেই ইথার ধারণাটি আইনস্টাইন বাতিল করে দিলেন আর গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটিকেই নিজের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটিরও প্রথম স্বীকার্য বানিয়ে নিলেন। আর দ্বিতীয় স্বীকার্যতে বললেন, আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব যা আমরা উপড়ের থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে দেখলাম।

আলোর বেগ সব কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব এই কথাটি মেনে নিতে অনেকেরই প্রথম প্রথম অনেক কষ্ট হয়। তাই বিষয়টি আরেকটু ব্যাখ্যা করা যাক। ধরুন, পৃথিবীর মানুষ আর এলিয়েনদের মাঝে একটি যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে। আপনি একটি স্পেস শিপ নিয়ে মহাকাশে গেলেন। একজন এলিয়েনও তাদের স্পেস শিপ নিয়ে মহাকাশে চলে গেলো। দুজনের স্পেস শিপেই কিন্তু হেডলাইটের মতো লাইট জ্বলার ব্যবস্থা আছে। হঠাৎ জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়াই আপনি আপনার স্পেস শিপটি নিয়ে স্থির দাঁড়িয়ে আছেন। তখনই এলিয়েন স্পেস শিপটি ২,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আপনার দিকে ছুঁটে আসল। আর আসতে আসতে ১০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে গুলি ছুঁড়তে পারে এমন একটি বন্দুক থেকে আপনার দিকে গুলি ছুঁড়তে লাগলো। তাহলে আপনি গুলিগুলোর বেগ কত দেখবেন? নিশ্চয় উত্তর দেবেন যে, আপনি দেখবেন গুলিগুলো ২,০০,০১০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আপনার দিকে ধেয়ে আসছে। কারণ গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা বলে যে, গুলির বেগের সাথে স্পেস শিপের বেগ যোগ হয়ে যাবে। এখন স্পেস শিপটি যদি হঠাৎ করে তার তার হেড লাইটটি জ্বালিয়ে দেয় তাহলে কি দেখবেন? আলোর বেগ কত হবে? স্পেস শিপের বেগ + আলোর বেগ? মানে ৫,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড? গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা তো তাই বলে। কিন্তু আইনস্টাইন বললেন, না। তখনও আপনি দেখবেন আলোর বেগ শুধু আলোর বেগের সমানই। মানে সর্বদাই ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড। এক ফোঁটা কমও নয় আবার এক ফোঁটা বেশিও নয়। এটাই আইনস্টাইনের দ্বিতীয় স্বীকার্য। এটাই সত্য!

আলোর বেগ যেভাবেই মাপা হোক না কেন তা ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ডই পাওয়া যায়। এ কারণেই মাইকেলসন-মর্লি যখন তাদের পরীক্ষাটি করেন তখন তাদের পরীক্ষায় সোজা পাঠানো আলো আর সমকোণে পাঠানো আলোর বেগের মাঝে কোন পার্থক্য ধরা পড়েছিলো না। পরবর্তিতেও অনেক পরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে যে আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, একই থাকে।

অর্থাৎ, দেখা গেলো আইনস্টাইনের এই ছোট্ট থট এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে আমরা স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি পেয়ে গেলাম। এ দুটি স্বীকার্যের উপড় ভিত্তি করেই দাঁড়িয়ে আছে আইনস্টাইনের বিশেষ আপেক্ষিকতার তত্ত্ব। তাই চলুন এ স্বীকার্য দুটি আরেকবার সুন্দর করে আমরা লিখে ফেলি। আইনস্টাইনের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি হলঃ

১। “একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি সিস্টেমে পদার্থবিজ্ঞান আসলে একই রকমভাবে কাজ করে এবং একই রকম ফলাফল দেয়” (গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যের অনুরুপ)

২। আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, একই থাকে। আলোর বেগ যেভাবেই মাপা হোক না কেন তা সর্বদা ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ডই পাওয়া যাবে।

এ দুটি স্বীকার্যের উপড় ভিত্তি করে আমরা কাল দীর্ঘায়ন সম্বন্ধেও বুঝতে পারি। গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার দ্বিতীয় স্বীকার্য, যেখানে সময়কে পরম হিসেবে ধরা হয়েছিল তা যে ভুল তা আমরা আইনস্টাইনের উপড়ের দুটি স্বীকার্য থেকে পাই। অর্থাৎ, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার প্রথম স্বীকার্য ঠিক হলেও দ্বিতীয় স্বীকার্যে পরম সময়ের বদলে পরম আলোর বেগ ব্যবহার করলেন আইনস্টাইন। এছাড়াও আমরা দৈর্ঘ্য সঙ্কোচন, ভর বা, ভরের আপেক্ষিকতা এবং ভর আর শক্তি যে একই জিনিস এমন অনেক কিছু আইনস্টাইনের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটি থেকে পরবর্তিতে জানতে এবং বুঝতে পারি। এ বিষয়গুলো নিয়ে পরবর্তি কোন এক লেখায় কথা বলা যাবে। আজ এ পর্যন্তই। কষ্ট করে এতদূর পড়ার জন্য সকলকে ধন্যবাদ।

আইনস্টাইনের আয়না এবং স্পেশাল রিলেটিভিটির দুইটি স্বীকার্য

স্যার আলবার্ট আইনস্টাইন। সম্ভবত পৃথিবীর ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী। সবচেয়ে আলোচিত এবং মেধাবীও বলা চলে। বিজ্ঞানী মাইকেলসন আর মর্লি আলোর বেগের আপেক্ষিকতার পরীক্ষা করেছিলেন পরীক্ষাগারের, যন্ত্র পাতির সাহায্য নিয়ে। আর কিশোর আইনস্টাইন সেটা করেছিলেন তার মাথার পরীক্ষাগারে, একটি ছোট্ট থট এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে। আজ আমরা সেই পরীক্ষার কথায় জানবো। তার সাথে সাথে জানবো এই থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে কিভাবে আমরা স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি পেয়ে যাই।

Image result for albert einstein wallpaper

তখন ১৮৯৬ সাল। আইনস্টাইনের বয়স কেবল ষোল। আইনস্টাইন তখনও মাইকেলসন আর মর্লির ইথারের পরীক্ষার বিষয়ে একদমই জানতেন না। ইথারের অস্তিত্ব যে কিছুটা সন্দেহের মুখে পড়ে গেছে তা না জেনেই আইনস্টাইন তার জীবন্ত পরীক্ষাগার, নিজের মাথায় একটি থট এক্সপেরিমেন্ট চালালেন। আইনস্টাইন নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করলেন, “কি ঘটবে যদি আমি এখন আমার দুই হাতে একটি আয়না ধরে আলোর বেগে দৌড়াতে শুরু করি। আমি নিজে কি নিজের প্রতিচ্ছবি সেই আয়নায় দেখতে পাবো?” বলে রাখা ভাল যে, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতায় শুধু আলোর বেগ কেন, আলোর চেয়ে বেশি বেগে যাওয়ার বিষয়েও কোন রকম বিধি নিষেধ ছিল না।

বিজ্ঞানীরা আরো আগে থেকেই জানতেন যে, আলোর বেগ ৩,০০,০০ কি.মি./সেকেন্ড। কিন্তু কার সাপেক্ষে আলোর এই বেগ? এ প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য তারা ইথারের ধারণার অবতারণা করেছিলেন। অর্থাৎ, আইনস্টাইন যখন আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড় দেবেন তখন আলো ইথার মাধ্যমে ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আইনস্টাইনের মুখমন্ডল থেকে আইনস্টাইনের হাতে ধরে রাখা আয়নাটির দিকে যাওয়ার চেষ্টা করবে। আইনস্টাইন নিজেও আলোর বেগে সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন। অর্থাৎ, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা অনুসারে আলো আর আইনস্টাইনের বেগ সমান বলে আলো কখনই আইনস্টাইনের মুখমন্ডল থেকে আয়নায় পৌঁছাতে পারবে না।

এ পর্যন্ত বুঝতে কারো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। এবার আমরা মনে করি দেখি যে, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার প্রথম স্বীকার্যটিতে কি বলা হয়েছিল। এই স্বীকার্য আমাদের বলেছিল যে, “একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি সিস্টেমে পদার্থবিজ্ঞান আসলে একই রকমভাবে কাজ করে এবং একই রকম ফলাফল দেয়”। যার অর্থ আমরা যদি একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি বস্তু বিবেচনা করি তাহলে আমরা কোনভাবেই বলতে পারব না যে কে গতিশীল আছে আর কে স্থির আছে।

চলুন, এখন আবার আইনস্টাইনের থট এক্সপেরিমেন্টে ফিরে যাই। আইনস্টাইনের থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে এই বিষয়টি নিশ্চিত যে, আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড়ালে আসলে আমাদের প্রতিবিম্ব আয়নাতে আমরা দেখতে পারবো না। ফলে নিজেদের মুখ আমরা আয়নায় দেখতে পাবো না। তাহলে কি দাঁড়ালো? একজন যদি আলোর বেগে আয়না নিয়ে দৌড় দেয় এবং আয়নায় দেখে নিজের প্রতিবিম্ব সেখানে পরছে না তখনই সে নিশ্চিতভাবে বলতে পারবে যে, সে আসলেই আলোর বেগে গতিশীল আছে। কিন্তু গ্যালিলিওর আপেক্ষিকতার স্বীকার্য আমাদের বলেছিল কোন একটি পরীক্ষা স্থির অবস্থায়ই করা হোক বা, সমবেগে গতিশীল থাকা অবস্থায়ই করা হোক না কেন একই ফলাফল দেবে। কিন্তু এই থট এক্সপেরিমেন্টে এই স্বীকার্যটি তো ভুল প্রমাণ হয়ে গেল!! তাহলে?

Image result for looking in mirror

আইনস্টাইন তার এই থট এক্সপেরিমেন্টে ইথার ধারণাটিকে প্রথমে সত্য বলে ধরে নিয়েছিলেন। অর্থাৎ, আলোর বেগ শুধু ইথারের সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড থাকে। অর্থাৎ, ইথার ধারণা সঠিক হলে গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটি ভুল হয়ে যায়।

যদি গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যকে সত্য হতে হয় তাহলে নিজের প্রতিবিম্ব আয়নায় দেখা যেতে হবে স্বাভাবিকভাবেই। আর সেটা তখনই সম্ভব হবে যখন আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই ধ্রুব বা, একই হবে। তাহলে আইনস্টাইন যদি আলোর বেগেও যান তাহলেও আলো তার সাপেক্ষে আলোর বেগেই চলবে। ফলে আলো স্বাভাবিকভাবেই আয়নায় পৌঁছাবে আর আইনস্টাইন তার মুখমন্ডল দেখতে পাবেন।

বিষয়টা আরেকটু পরিষ্কারভাবে বলা যাক। ধরি, আইনস্টাইন একটি আয়না নিয়ে স্থির দাঁড়িয়ে আছেন। তাহলে তিনি যদি এখন তার ডান হাতটি হালকা নাড়ান তবে খুব কম সময়ের মাঝে সামনের আয়নাতে তিনি তার ডান হাত নাড়ানোটি দেখতে পাবেন। এখন যদি তিনি আলোর কাছাকাছি বেগে আয়নাটি নিয়ে দৌড় দেন তবে গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা অনুসারে তার সাপেক্ষে আলোর বেগ কমে যাবে (যদি কোন গাড়ি ১০ মি./সেকেন্ড বেগে যায় আর আপনি ৫ মি./সেকেন্ড বেগে সেই একই দিকে দৌড়ান তাহলে আপনার কাছে মনে হবে গাড়ির বেগ কমে ৫ মি./সেকেন্ড হয়ে গিয়েছে। একই যুক্তিতে আলোর বেগের কাছাকাছি বেগে গেলে আপনার সাপেক্ষে আলোর বেগ কমে যাওয়ার কথা)। তাহলে ডান হাত নাড়ানোর অনেক পরে তিনি আয়নাতে তার হাত নাড়ানো দেখতে পাবেন। সময়ের এ পার্থক্য দিয়েও যে কেউ বলে ফেলতে পারবেন যে তিনি আসলে স্থির নয় বরং গতিশীল আছেন। অর্থাৎ, আপনি স্থির থাকলে আলোর বেগ আপনার কাছে যত হবে আপনি যদি আলোর কাছাকাছি বেগেও দৌড়ানো শুরু করেন তবেও আলোর বেগ আপনার সাপেক্ষে ৩,০০,০০ কি.মি./সেকেন্ডই থাকতে হবে। তবেই শুধুমাত্র গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটিকে বাঁচানো সম্ভব হবে। আর এটি সত্য হলে আলোর বেগের ওপড় ইথারের আর কোন প্রভাব থাকে না। সুতরাং ইথার ধারণাটিও অপ্রয়োজনীয় হয়ে যায়।

অর্থাৎ, গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্য এবং ইথার ধারণা এ দুটোই একই সাথে সত্য হতে পারেনা। এদের যেকোন একটাকে মিথ্যা হতেই হবে। এর আগেই মাইকেলসন-মর্লির এক্সপেরিমেন্ট থেকে আমরা দেখেছি ইথারের অস্তিত্ব প্রমাণ করা সম্ভব হয় নি। আইনস্টাইনও দেখলেন আলোর বেগকে যদি সব কিছুর সাপেক্ষে সর্বদা একই ধরে নেয়া হয় তাহলে ইথারের আর প্রয়োজন পড়ে না। এভাবেই ইথার ধারণাটি আইনস্টাইন বাতিল করে দিলেন আর গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যটিকেই নিজের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটিরও প্রথম স্বীকার্য বানিয়ে নিলেন। আর দ্বিতীয় স্বীকার্যতে বললেন, আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব যা আমরা উপড়ের থট এক্সপেরিমেন্ট থেকে দেখলাম।

আলোর বেগ সব কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব এই কথাটি মেনে নিতে অনেকেরই প্রথম প্রথম অনেক কষ্ট হয়। তাই বিষয়টি আরেকটু ব্যাখ্যা করা যাক। ধরুন, পৃথিবীর মানুষ আর এলিয়েনদের মাঝে একটি যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে। আপনি একটি স্পেস শিপ নিয়ে মহাকাশে গেলেন। একজন এলিয়েনও তাদের স্পেস শিপ নিয়ে মহাকাশে চলে গেলো। দুজনের স্পেস শিপেই কিন্তু হেডলাইটের মতো লাইট জ্বলার ব্যবস্থা আছে। হঠাৎ জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়াই আপনি আপনার স্পেস শিপটি নিয়ে স্থির দাঁড়িয়ে আছেন। তখনই এলিয়েন স্পেস শিপটি ২,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আপনার দিকে ছুঁটে আসল। আর আসতে আসতে ১০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে গুলি ছুঁড়তে পারে এমন একটি বন্দুক থেকে আপনার দিকে গুলি ছুঁড়তে লাগলো। তাহলে আপনি গুলিগুলোর বেগ কত দেখবেন? নিশ্চয় উত্তর দেবেন যে, আপনি দেখবেন গুলিগুলো ২,০০,০১০ কি.মি./সেকেন্ড বেগে আপনার দিকে ধেয়ে আসছে। কারণ গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা বলে যে, গুলির বেগের সাথে স্পেস শিপের বেগ যোগ হয়ে যাবে। এখন স্পেস শিপটি যদি হঠাৎ করে তার তার হেড লাইটটি জ্বালিয়ে দেয় তাহলে কি দেখবেন? আলোর বেগ কত হবে? স্পেস শিপের বেগ + আলোর বেগ? মানে ৫,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড? গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতা তো তাই বলে। কিন্তু আইনস্টাইন বললেন, না। তখনও আপনি দেখবেন আলোর বেগ শুধু আলোর বেগের সমানই। মানে সর্বদাই ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ড। এক ফোঁটা কমও নয় আবার এক ফোঁটা বেশিও নয়। এটাই আইনস্টাইনের দ্বিতীয় স্বীকার্য। এটাই সত্য!

আলোর বেগ যেভাবেই মাপা হোক না কেন তা ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ডই পাওয়া যায়। এ কারণেই মাইকেলসন-মর্লি যখন তাদের পরীক্ষাটি করেন তখন তাদের পরীক্ষায় সোজা পাঠানো আলো আর সমকোণে পাঠানো আলোর বেগের মাঝে কোন পার্থক্য ধরা পড়েছিলো না। পরবর্তিতেও অনেক পরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে যে আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, একই থাকে।

অর্থাৎ, দেখা গেলো আইনস্টাইনের এই ছোট্ট থট এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে আমরা স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি পেয়ে গেলাম। এ দুটি স্বীকার্যের উপড় ভিত্তি করেই দাঁড়িয়ে আছে আইনস্টাইনের বিশেষ আপেক্ষিকতার তত্ত্ব। তাই চলুন এ স্বীকার্য দুটি আরেকবার সুন্দর করে আমরা লিখে ফেলি। আইনস্টাইনের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটির স্বীকার্য দুটি হলঃ

১। “একে অপরের সাপেক্ষে সমবেগে গতিশীল দুটি সিস্টেমে পদার্থবিজ্ঞান আসলে একই রকমভাবে কাজ করে এবং একই রকম ফলাফল দেয়” (গ্যালিলিওর প্রথম স্বীকার্যের অনুরুপ)

২। আলোর বেগ সকল কিছুর সাপেক্ষেই সর্বদা ধ্রুব বা, একই থাকে। আলোর বেগ যেভাবেই মাপা হোক না কেন তা সর্বদা ৩,০০,০০০ কি.মি./সেকেন্ডই পাওয়া যাবে।

এ দুটি স্বীকার্যের উপড় ভিত্তি করে আমরা কাল দীর্ঘায়ন সম্বন্ধেও বুঝতে পারি। গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার দ্বিতীয় স্বীকার্য, যেখানে সময়কে পরম হিসেবে ধরা হয়েছিল তা যে ভুল তা আমরা আইনস্টাইনের উপড়ের দুটি স্বীকার্য থেকে পাই। অর্থাৎ, গ্যালিলিয়ান আপেক্ষিকতার প্রথম স্বীকার্য ঠিক হলেও দ্বিতীয় স্বীকার্যে পরম সময়ের বদলে পরম আলোর বেগ ব্যবহার করলেন আইনস্টাইন। এছাড়াও আমরা দৈর্ঘ্য সঙ্কোচন, ভর বা, ভরের আপেক্ষিকতা এবং ভর আর শক্তি যে একই জিনিস এমন অনেক কিছু আইনস্টাইনের স্পেশাল থিওরি অভ রিলেটিভিটি থেকে পরবর্তিতে জানতে এবং বুঝতে পারি। এ বিষয়গুলো নিয়ে পরবর্তি কোন এক লেখায় কথা বলা যাবে। আজ এ পর্যন্তই। কষ্ট করে এতদূর পড়ার জন্য সকলকে ধন্যবাদ।